advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তরুণ উদ্যোক্তা গড়ে তোলা হবে

আব্দুল্লাহ কাফি
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:১২
advertisement

সাক্ষাৎকারে নওগাঁ চেম্বারের সভাপতি ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল

শিক্ষকের সন্তান হলেও পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন ব্যবসা। এসএসসি পাস করে বগুড়া সরকারি কলেজে এইচএসসি পড়াকালে ১৯৯১ সালে ব্যবসা শুরু করেন। বর্তমানে তিনি এমএস ইথেন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী। পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের সংগঠন নওগাঁ চেম্বারের সভাপতি। এই ব্যবসায়ী নেতা তরুণ উদ্যোক্তা তৈরিতে কাজ করে যাচ্ছেন। এই উদ্যোক্তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমাদের সময়ের নিজস্ব প্রতিবেদক আব্দুল্লাহ কাফি

আমাদের সময় : কখন ও কীভাবে ব্যবসায় আসেন?

ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল : বাবা ছিলেন বগুড়া সরকারি আজিজুল হক সরকারি কলেজের শিক্ষক। নওগাঁয় পরিবারের বসবাস। ১৯৭২ সালে নওগাঁ সদরে নানার বাড়িতে জন্ম। এসএসসি পাস করার পর জনতা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে অস্থায়ী চাকরিতে যোগদান করি। লক্ষ্য ছিল ব্যবসার পুঁজি সংগ্রহ করা। দুই বছর চাকরি করার পর ৭ হাজার টাকা জমিয়ে প্রথম ঠিকাদারি ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হই। এই ৭ হাজার টাকা দিয়েই প্রথম টেন্ডার সাবমিট করি। এখান থেকেই ব্যবসার শুরু।

আমাদের সময় : ব্যবসা করার পাশাপাশি সংগঠক হিসেবে আপনার ভাবনা কী?

ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল : তা ঠিক। সংগঠন করলে একটু বাড়তি চাপ থাকে। সংগঠনের পেছনে সময় দিতে হয়। তার পরও শুধু নিজের কথা চিন্তা করলে চলবে না। আরও দশজন ব্যবসায়ীর কথা চিন্তা থেকেই সংগঠনে আসা। সবার সুখে-দুঃখে পাশে থাকা যায়। তাদের সমস্যা নিয়ে কথা বলা যায়। সাধারণ ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করেই ব্যবসায়ী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হওয়া। তার পর প্রতিনিধিত্ব করা।

আমাদের সময় : নওগাঁ চেম্বারের পক্ষ থেকে বর্তমানে কী কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে?

ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষিত তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে নওগাঁ চেম্বার নিরলস কাজ করছে। তরুণ উদ্যোক্তা খুঁজে বের করে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া ও প্রাথমিক ব্যবসার পুঁজির ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তরুণ উদ্যোক্তা সম্মেলন হয়েছে। বর্তমানে নওগাঁ চেম্বার ৩৫ জন তরুণ উদ্যোক্তা নিয়ে কাজ করছে। চলতি বছর ৫০ জন উদ্যোক্তা তৈরি করবে। এ লক্ষ্য সামনে রেখে আমরা কাজ করছি।

আমাদের সময় : নওগাঁ চেম্বার কী ধরনের সামাজিক কাজ করে?

ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল : এসএসসি পাস শিক্ষার্থীদের নওগাঁ চেম্বার সংবর্ধনা দেয়। এর পাশাপাশি গরিবদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ, দুস্থ নারীদের সেলাই মেশিন বিতরণ, মুক্তিযোদ্ধাদের অর্থনৈতিক সহায়তা, তরুণদের খেলাধুলার জন্য ক্লাবগুলোয় অনুদান দেওয়ার পাশাপাশি ব্লাড ব্যাংক ও টেনিস ক্লাবে অনুদান দেওয়া হয়।

আমাদের সময় : ব্যবসায়ীদের জন্য বর্তমানে কী সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানে কী করা উচিব বলে মনে করেন?

ইকবাল শাহরিয়ার রাসেল : নওগাঁকে স্বাবলম্বী করতে হলে চালের ব্যবসায়ী, হাসকী মিলের দুরবস্থা দূর করা প্রয়োজন। রাইস মিলগুলোকে শিল্প হিসেবে ঘোষণা করা এখন সময়ের দাবি। পাশাপাশি কৃষকরা যাতে তাদের ন্যায্য দাম পায় এবং মিল মালিকরাও যাতে টিকে থাকতে পারে এ বিবেচনায় সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক হওয়া প্রয়োজন।

advertisement