advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাঁশের সাঁকো নয়, ব্রিজ চাই হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়ার ৩০ হাজার মানুষের দাবি

আবদুল হক লিটন, হালুয়াঘাট
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:১২
কংশ নদীতে নিজেদের উদ্যোগে নির্মিত এই বাঁশের সাঁকোই দুই উপজেলার ৩০ হাজার মানুষের যোগাযোগ রক্ষা করছে ষআমাদের সময়
advertisement

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলায় প্রায় ৩০ হাজার মানুষের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম কংশ নদীতে স্থানীয়দের উদ্যোগে নির্মিত বাঁশের সাঁকো। এটি শুষ্ক মৌসুমে উপকারে এলেও বর্ষায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে। তাই এলাকার সর্বস্তরের মানুষ সাঁকোর পরিবর্তে ব্রিজ চায়।

হালুয়াঘাট উপজেলার আলিশা বাজার হয়ে নিশ্চিন্তপুর ও বটগাছিয়াকান্দা গ্রামের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত কংশ নদী। ধোবাউড়া উপজেলা বাঘবেড় ইউনিয়নের মিলনবাজার ঘেঁষে গোদারিয়া নদীতে মিলিত হয়েছে এই নদী। নদীর পাড়ে মিলনবাজারে রয়েছে তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এগুলোয় রয়েছে হাজারো শিক্ষার্থী। ঝুঁকি নিয়ে এসব শিক্ষার্থী এবং খামারবাসা, মিলনবাজার, নিশ্চিন্তপুর বটগাছিয়াকান্দাসহ ১০ গ্রামের মানুষ এই সাঁকো ব্যবহার করে।

খামারবাসা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমীর হোসাইন জানান, নড়বড়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে ৩০০-৪০০ শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করে। বর্ষাকালে নদীর পানি বেড়ে গেলে সাঁকোটি ভেসে যাওয়ার উপক্রম হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ নদীতে দীর্ঘদিন ধরে ব্রিজ নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর। এ ব্যাপারে সরকারের নজর দেওয়া উচিত।

স্থানীয় ব্যবসায়ী খায়ের উদ্দিন আহম্মদ কবির জানান, এক সময় এই ঘাটে খেয়া নৌকা চলত। বেশ কয়েকবার নৌকা ডুবে প্রাণহানি ঘটার কারণে এলাকাবাসী বিভিন্ন গ্রাম থেকে বাঁশ সংগ্রহ করে নিজেরাই সাঁকোটি তৈরি করে। গোদারিয়া নদীর ওপর একটি আরসিসি ব্রিজ স্থাপনে স্থানীয় সংসদ সদস্য জুয়েল আরেংয়ের সহযোগিতা চায় এলাকাবাসী।

স্থানীয় বাসিন্দা কামাল হোসাইন জানান, নদীর আশপাশে বেশ কয়েকটি অবহেলিত গ্রাম রয়েছে। আর এসব গ্রাম কৃষিনির্ভর হওয়ায় তাদের উৎপাদিত পণ্য জেলা শহরে বাজারজাত করতে পারেন না। এতে উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তারা। গোদারিয়া নদীতে ব্রিজ হলে দুই উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবহেলিত গ্রামের মানুষ উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পাবে, ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে এবং যাতায়াতও সহজ হবে। হালুয়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদুল হক সায়েম বলেন, দুই উপজেলার সেতুবন্ধনে সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং গোদারিয়া নদীতে ব্রিজ নির্মাণে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন বলে আশা করি।

হালুয়াঘাট উপজেলা প্রকৌশলী শান্তনু ঘোষ সাগর বলেন, ইতোমধ্যে আমরা বেশকিছু নদী-খালে ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি। বিলডোড়া ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর রহেলা ও বটগাছিয়াকান্দা গ্রামের ওপর দিয়ে বয়ে আসা গোদারিয়া নদী ওপর ব্রিজ স্থাপন খুবই প্রয়োজন। তাই পরবর্তীকালে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাব।

advertisement