advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গ্রেপ্তারের পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক কক্সবাজার
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০৯:১৩ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৪:২৮
রোহিঙ্গা দম্পতি দিল মোহাম্মদ এবং তার স্ত্রী জাহেদা বেগম। ছবি-সংগৃহীত
advertisement

কক্সবাজারের টেকনাফে গ্রেপ্তারের পর পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা ডাকাত দম্পতি নিহত হয়েছেন। আজ রোববার ভোরে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, নিহতরা সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সদস্য। ডাকাতিসহ নানা অপরাধে জড়িত অভিযোগে টেকনাফ থানায় তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। এসব মামলায় তারা পলাতক ছিলেন।

নিহতরা হলেন- টেকনাফের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা মৃত কাদের হোসেনের ছেলে দিল মোহাম্মদ (৩২) ও তার স্ত্রী জাহেদা বেগম (২৭)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, শনিবার রাতে যৌথ বাহিনীর অভিযানে টেকনাফের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকা থেকে সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সদস্য দিল মোহাম্মদ ও তার স্ত্রী জাহেদা বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, লেদা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় মোহাম্মদ শফিউল্লাহ নামের ডাকাত দলের আরেক সদস্য অস্ত্রসহ অবস্থান করছে- এমন খবরে পুলিশের একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছামাত্র পুলিশ সদস্যদের লক্ষ্য করে তাদের সহযোগীরা গুলি ছুড়তে থাকে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুড়ে।

একপর্যায়ে গুলি ছুড়তে ছুড়তে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে ঘটনাস্থলে দিল মোহাম্মদ ও জাহেদা বেগমকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়। তারা হলেন- এসআই নিজাম উদ্দিন, কনস্টেবল সুদর্শন দাশ ও শাহাদাত হোসেন।

আহতদের উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুলিবিদ্ধ দুজনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে নিয়ে আসলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনাস্থল থেকে দুটি এলজি, একটি থ্রিকোয়াটার, আট রাউন্ড কার্তুজ ও ১২ রাউন্ড কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

advertisement