advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

৫০ টাকার লোভ দেখিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ 

দেবিদ্বার প্রতিনিধি
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১০:২৮ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১০:৩৫
গ্রেপ্তার রিয়াজুল ইসলাম। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় ৫০ টাকা দেওয়ার লোভ দেখিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে (৯) ধর্ষণ করেছে রিয়াজুল ইসলাম (২২) নামে এক যুবক। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় ঘটনার পরপরই তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

এদিন রাতেই ওই ছাত্রীর মা রিয়াজুলকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

গ্রেপ্তার রিয়াজুল উপজেলার বাগুর এলাকার রেনু মিয়ার ছেলে এবং কোরপাই এলাকার একটি সুতার মেইলে কাজ করেন। ওই ছাত্রী স্থানীয় একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে এবং সম্পর্কে রিয়াজের ভাতিজি।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত রিয়াজুল শিশুটিকে ৫০ টাকা দেওয়ার লোভ দেখিয়ে একটি বেগুন খেতে নিয়ে যায়। পরে মুখ চেপে তাকে ধর্ষণ করে।  এ সময় ওই ছাত্রীর চিৎকারে বাহার (১৬) নামে এক স্কুলছাত্র এসে রিয়াজকে আটক করে। এর পর তাকে মারধর করে শিশুটিকে উদ্ধার করেন।

অভিযুক্ত রিয়াজুল ধর্ষণের কথা স্বীকার করে বলেন, ‘৫০ টাকা দেওয়ার কথা বলে তাকে বেগুন খেতে নিয়ে যাই। পরে ওখানে তাকে ধর্ষণ করি।’

মামলার বাদী ও নির্যাতিত ছাত্রীর মা বলেন, ‘রিয়াজুল সম্পর্কে চাচা হলেও সে আমার মেয়েকে দেখলে প্রায় খারাপ কথা বলতো। আমি কয়েকবার তাকে নিষেধ করেছি। তার পরও সে শোনেনি। কয়েকদিন আগে রিয়াজুলের মায়ের কাছে নালিশ দিলেও বিষয়টিকে গুরুত্ব দেইনি। যার কারণে আজ আমার মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হলো। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই। ’

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কুমিল্লা উত্তরের জেলা সদস্য হাজী সরকার মো. লিটন বলেন, ‘প্রথমে ঘটনাটি শোনার পর আমি কিছু ছেলেকে পাঠিয়ে অভিযুক্ত রিয়াজুলকে আটক করি। পরে দেবিদ্বার থানায় জানিয়ে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেই।’

দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল আনোয়ার জানান, শিশুটির গায়ে নখের আঁচড় রয়েছে। পুলিশ অভিযুক্ত রিয়াজুলকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। ’

আজ সকালে শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে পাঠানো হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

advertisement