advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

হাজতে নারীকে গণধর্ষণ : সেই ওসিসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার আবেদন

নিজস্ব প্রতিবেদক,খুলনা
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১২:০৭ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৬:০৭
খুলনার জিআরপি থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উছমান গণি
advertisement

হাজতে এক নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় খুলনার জিআরপি থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উছমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে গণধর্ষণের মামলার আবেদন করা হয়েছে।

আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভিকটিম নিজে বাদী হয়ে খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে এ আবেদন করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে আইনজীবী মমিনুল ইসলাম বলেন, ‘দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ১টার দিকে এ আবেদনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। ’

এর আগে গত ৯ আগস্ট ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে খুলনার জিআরপি থানায় ওসি উছমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় গণধর্ষণের সময় থানায় দায়িত্বে থাকা ওসি, ডিউটি অফিসারসহ অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করা হয়।

গত ৮ আগস্ট দুপুরে ভুক্তভোগী নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল তদন্ত কমিটি। জিজ্ঞাসাবাদের পরেই আদালতের নির্দেশে পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২ আগস্ট রাতে খুলনা জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওসমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও মারধরের অভিযোগ করেন এক নারী।

তার অভিযোগ, সেদিন যশোর থেকে ট্রেনে আসার সময় ফুলতলা এলাকায় জিআরপি পুলিশ প্রথমে তাকে মোবাইল চুরির অপরাধে থানায় ধরে নিয়ে যায়। পরে গভীর রাতে জিআরপি পুলিশের ওসি ওসমান গণি পাঠান তাকে ধর্ষণ করেন। এর পর আরও চারজন পুলিশ সদস্য পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। কিন্তু পরের দিন শনিবার তাকে পাঁচ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

এ ঘটনায় গত ৭ আগস্ট খুলনা রেলওয়ে জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওসমান গণি পাঠান, এসআই নাজমুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্তকৃত সেই ওসি এখন জিআরপি থানার হেডকোয়ার্টার ঈশ্বরদীতে আছেন।

advertisement