advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘বাকশালী ভূত এখনো আওয়ামী রাজনীতির নিয়ামক শক্তি’

নিজস্ব প্রতিবেদক
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২২:০৩ | আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:২৫
শামসুজ্জামান দুদুর বাড়িতে হামলা এবং তার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ছাত্রদলের শীর্ষ পর্যায়ের সাবেক ১৮ নেতা
advertisement

বাকশালী ভূত এখনো আওয়ামী রাজনীতির নিয়ামক শক্তি বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্রদলের শীর্ষ পর্যায়ের সাবেক ১৮ নেতা। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর টিভি টকশোর একটি বক্তব্যের অপব্যাখ্যা করে, তার বাড়িতে হামলা এবং তার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে আজ রোববার রাতে এই মন্তব্য করেন তারা।

ছাত্রদলের সাবেক ওই নেতাদের অনেকেই এখন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তারা অবিলম্বে শামসুজ্জামান দুদুর বাড়িতে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি করে তার নামে দায়ের হওয়া মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানিয়েছেন।  

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, ‘শামসুজ্জামাসন দুদু এ দেশের ছাত্র রাজনীতির এক উজ্জ্বল নক্ষত্র, গণতান্ত্রিক সমাজ নির্মাণে রয়েছে তার অপরিসীম ত্যাগ, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার সংগ্রামে তার সাহসী উচ্চারণ আওয়ামী বাকশালীদের গায়ে তীব্র দাবানলের সৃষ্টি করেছে। তাই আওয়ামী বাকশালী শক্তি গণতন্ত্রের সকল রীতিনীতি উপেক্ষা করে স্বৈরাচারী কায়দায় তার বাড়িতে হামলা-ভাঙচুর ও মিথ্যা মামলা দায়েল করে তাদের সন্ত্রাসী মনোভাব জাতির সামনে নগ্নভাবে প্রকাশ করেছে। বহুদল, বহুমত, গণতন্ত্রের যে সৌন্দর্য তা তারা বিশ্বাস করে না।’

বিবৃতিতে নেতারা আরও বলেন, ‘বাকশালী ভূত এখনো আওয়ামী রাজনীতির নিয়ামক শক্তি। এ দেশের জনগণ ফ্যাসিস্ট, বাকশালী শক্তিকে মেনে নেয়নি ভবিষ্যতেও নেবে না। তারা যদি এ ধরনের অগণতান্ত্রিক মনোভাব ও কর্মকাণ্ড পরিহার না করে তাহলে এ দেশের ছাত্র সমাজ গণতন্ত্রমনা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এর সমায়োচিত জবাব দেবে।’

বিবৃতি দেওয়া বিএনপি ওই ১৮ নেতা হলেন, ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আমান উল্লাহ আমান, রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, ফজলুল হক মিলন, নাজিম উদ্দিন আলম, খাইরুল কবির খোকন, কামরুজ্জামান রতন, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, হাবিব উন-নবী খান সোহেল, এ বি এম মোশাররফ হোসেন, আজিজুল বারী হেলাল, শফিউল বারী বাবু, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, আমিরুল ইসলাম খান আলীম, আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, হাবিবুর রশিদ হাবিব, রাজীব আহসান ও আকরামুল হাসান মিন্টু।

advertisement