advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চট্টগ্রামে আবাহনী মোহামেডানেও জুয়া চলত

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২৩:৪৬
advertisement

চট্টগ্রাম নগরীর তিনটি ক্রীড়া ক্লাবে হঠাৎ অভিযান চালিয়েছে র‌্যাব। যেখানে ক্রীড়া সামগ্রী থাকার কথা, সেখানে পাওয়া গেছে জুয়াখেলার সরঞ্জাম। আর এসব ক্লাব পরিচালনায় রয়েছেন সরকারদলীয় সংসদ সদস্য, যুবলীগ এবং আওয়ামী লীগ নেতারা। এদিকে মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রে জুয়া চালানোর আলামত পাওয়ায় ক্লাবটির বিরুদ্ধে জুয়া আইনে মামলা দায়ের করেছে র‌্যাব।

গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে নগরীর আইস ফ্যাক্টরি রোডে ‘বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র’, হালিশহরে আবাহনী লিমিটেড এবং সদরঘাটে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে অভিযান চালায় র‌্যাব। মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অভিযানে গেলে ক্লাবটি তালাবদ্ধ পায়। পরে একজন নিরাপত্তাকর্মী এসে তালা খুলে দেন। সেখানে অভিযান চালিয়ে জুয়ার ঘুঁটি ও বোর্ড জব্দ করা হয়। দুটি কিরিচও পাওয়া গেছে সেখানে। ওই ক্লাব থেকে সরিয়ে নেওয়া কয়েকটি জুয়ার বোর্ড পরে নগরীর সদরঘাটে লায়ন সিনেমা হলের পেছন থেকে জব্দ করা হয়। মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্র পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সহসাধারণ সম্পাদক মো. হারুন আর রসিদ। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহসাধারণ সম্পাদক সরওয়ার কামাল দুলু। তবে মহানগর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক

ও বর্তমানে নগর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান ক্লাবটি পরিচালনা করছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চট্টগ্রাম জেলা ইউনিট কমান্ডার মোহাম্মদ সাহাবউদ্দিন বলেন, ‘তিন বছর আগে কেন্দ্র থেকে ক্লাব পরিচালনার দায়িত্ব নেওয়া হয়। মশিউর রহমানই মূলত এটি পরিচালনা করেন।’ ক্লাব পরিচালনা কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলম বলেন, ‘চার বছর আগে খসরু নামে একজনকে ক্লাবের ইজারা দেওয়া হয়। ছয় মাস আগে তার ইজারা শেষ হয়েছে। দৈনিক ১০ হাজার টাকা ভাড়ায় ক্লাবটি ইজারা দেওয়া হয়েছিল।’

র‌্যাব ৭-এর সহকারী পরিচালক সিনিয়র এএসপি মিমতানুর রহমান জানান, আবাহনী ক্লাব এবং মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবেও জুয়ার আসর বসানোর আলামত পাওয়া গেছে। মোহামেডানে গত ১৮ সেপ্টেম্বরও জুয়ার আসর বসেছিল। আর মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্র থেকে জব্দ করা হিসাবের খাতায় এক মাসে ১২ লাখ টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, আবহানী ক্লাব পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে রয়েছেন আওয়ামী লীগদলীয় সংসদ সদস্য এমএ লতিফ, সাধারণ সম্পাদক একই দলের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ শামসুল হক চৌধুরী। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি শাহ আলম বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক শাহবুদ্দিন শামীম। বাবুল শিল্পপতি এবং শামীম আওয়ামী লীগ নেতাদের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘তিনটি ক্লাবেই জুয়ার সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। অর্থাৎ সেখানে নিয়মিত জুয়ার আসর বসত। আমরা যাচাই-বাছাই করে তিনটি ক্লাব কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধেই মামলা দায়ের করব। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের বিরুদ্ধে এরই মধ্যে সদরঘাট থানায় জুয়া আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

চাঁদপুরে ক্লাব থেকে ৯ জুয়াড়ি আটক : শহরতলীর বাবুরহাট একাদশ ক্লাবে অভিযান চালিয়ে ৯ জুয়াড়িকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার গভীর রাতে চাঁদপুর মডেল থানার ইনচার্জ মো. নাসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে এসআই লোকমান সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করেন। আটককৃতরা হলেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক সুকমার কর রামু, চাঁদপুর পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি যুবরাজ চন্দ্র দাস, সদরের আশিকাটি ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুল মান্নান মাল (৫৪), দক্ষিণ দাসদী গ্রামের ছিদ্দিক মিজি, শিলন্দিয়া এলাকার ইমদাদুল হক পাটওয়ারী, একই এলাকার সেলিম মিজি (৬০), দক্ষিণ দাসদী গ্রামের ইসমাইল শেখ, দাসদী গ্রামের দুলাল ধর ও হোসেনপুর গ্রামের বশিল সৈয়াল।

বগুড়া টাউন ক্লাবে জুয়া চালানোয় মামলা : বগুড়া টাউন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শামীম কামাল শামীমসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। বগুড়া সদর ফাঁড়ির এসআই জিলালুর রহমান বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে জুয়া আইনে মামলাটি করেছেন। শনিবার রাতে সদর থানা পুলিশ শহরের জিরো পয়েন্ট সাতমাথার টেম্পল রোডে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ অফিস লাগোয়া ১২৩ বছরের প্রাচীন ওই ক্লাবে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে। সেখান থেকে জব্দ করা হয় নগদ ১৬ হাজার টাকা ও জুয়ার সরঞ্জাম। [প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন বগুড়ার নিজস্ব প্রতিবেদক ও চাঁদপুর প্রতিনিধি।]

advertisement