advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ফাইনালে আমিন–লকে পাওয়ার আশা

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:৩৫
advertisement

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আলোচিত অভিষেক ম্যাচে দুই উইকেট পান আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। ওই ম্যাচে হাতে চোটও পেয়েছেন ডানহাতি এ স্পিনার। বাঁ-হাতে তিনটি সেলাই পড়েছে। তার হাতে ছিল ব্যান্ডেজ। আফগানিস্তান ম্যাচে খেলতে পারেননি আমিনুল; তবে ফাইনালে তাকে পাওয়ার আশা করছে দল।

জিম্বাবুয়ে ও আফগানিস্তানকে নিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজন করেছে বিসিবি। জিম্বাবুয়ের বিদায় নিশ্চিত হয়েছে। ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। আগামীকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে শিরোপানির্ধারণী ম্যাচ। রশিদ খানদের বিপক্ষে মাঠে নামতে প্রস্তুত সাকিব বাহিনী। চট্টগ্রাম থেকে দুদলই ঢাকায় এসে পৌঁছেছে।

টি-টোয়েন্টিতে আফগানদের হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগ নেই। ঢাকায় টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম সাক্ষাতে রশিদ খানের দলের কাছে ২৫ রানে পরাজিত হয় টাইগাররা। অবশ্য বন্দরনগরী চট্টগ্রামে সে হারের ‘প্রতিশোধ’ নিয়েছে সাকিবরা! এবার শিরোপানির্ধারণী ম্যাচ। দেশের মাটিতে খেলা হওয়ায় আশার পালে ভেলা ভাসাচ্ছেন টাইগাররা। সাকিব, মুশফিকদের বিশ্বাস নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে ফাইনাল তারাই জিতবে!

বিসিবির তরফে প্রথম দুই ম্যাচের জন্য দল দেওয়া হয়েছিল। চট্টগ্রাম পর্বের দুই ম্যাচের দলে পরিবর্তন আনা হয়েছিল। বন্দরনগরীতে অনুষ্ঠিত ওই দুই ম্যাচেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ফাইনাল ম্যাচে তাই আগের স্কোয়াডের ওপরই আস্থা রেখেছেন নির্বাচকরা।

এর আগে আমিনুল জানান, ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই বোলিং করতেন তিনি। সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে বোলিং করেছি। তবে মাঝখানে বেশ কিছুদিন বিরতি গেছে বোলিংয়ে। আমার কাঁধে ইনজুরি ছিল, যে কারণে তখন করতে পারতাম না। প্রিমিয়ার লিগের সময় যখন আমার কাঁধের ইনজুরি হয়, তখন আমি বোলিং করতে পারিনি। এর পর যখন এইচপিতে আসি, তখন আল্লাহর রহমতে কাঁধ ভালো হয়। তখন সায়মন হেলমট আমার বোলিং নিয়ে কাজ করেন। আমি ওয়াহিদ স্যারের সঙ্গেও কাজ করেছিলাম; তার আগে আমি সোহেল স্যারের সঙ্গে কাজ করেছিÑ কীভাবে আমার বোলিং উন্নতি করা যায়, সেগুলো নিয়ে। স্যার আমাকে উপদেশ দিয়েছেন। সোহেল স্যার এবং ওয়াহিদ স্যারের যেগুলো ভালো সেসব মেনে চলে আমি চেষ্টা করে গেছি।’

বাংলাদেশ দল : সাকিব (অধিনায়ক), মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির, মোসাদ্দেক, লিটন, আফিফ, তাইজুল, রুবেল, মোস্তাফিজ, সাইফউদ্দিন, শফিউল, নাঈম শেখ, আমিনুল, নাজমুল শান্ত।

advertisement