advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

২১৫ কোটি টাকা চাওয়া হলেও বরাদ্দ মেলেনি

প্রদীপ মোহন্ত বগুড়া
২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:১৪
advertisement

বগুড়ায় বন্যাপরবর্তী কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচির জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ২১৫ কোটি টাকার বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে আবেদন করলেও এখনো বরাদ্দ মিলেনি। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মাঝে সরকারিভাবে পুনর্বাসনের কার্যক্রম শুরু করা যায়নি। এতে করে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না। তবে কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, বরাদ্দ পাওয়া গেলেই রবি মৌসুমে পুনর্বাসনের কার্যক্রম শুরু করা যাবে।

এবারের বন্যায় বগুড়ার ৭টি উপজেলায় ২০ হাজার ৬০০ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। টাকার অঙ্কে তা ২১৫ কোটি টাকার মতো। ক্ষতিগ্রস্ত ফসলের মধ্যে রয়েছে পাট, আউশ ধান, শাক-সবজি, মরিচ, আমন বীজতলা, রোপা আমন, কলা ও আখ।

বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া বন্যা প্রায় এক মাস ¯'ায়ী ছিল। ক্ষতিগ্রস্ত সাত উপজেলা হলো সারিয়াকান্দি, সোনাতলা, ধুনট, শেরপুর, শাজাহানপুর, গাবতলী ও শিবগঞ্জ। এর মধ্যে বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত সারিয়াকান্দি এবং কম ক্ষতিগ্রস্ত শিবগঞ্জ।

বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক নিখিল চন্দ্র বিশ^াস জানান, এবারের বন্যায় ক্ষতির সমপরিমাণ বরাদ্দ চেয়েই মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়। তিনি আরও জানান, বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসনের জন্য কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে একশ হেক্টর জমিতে আমনের বীজতলা তৈরি করা হয়েছে।

advertisement