advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দরিদ্ররা যেন স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত না হয়

২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:৫১
আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০১:৫১
advertisement

বিশ্বে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক স্তরের দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দারিদ্র্যের কারণে কেউ যেন স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত না হয়। আমি বিশ্বাস করি, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক পর্যায়ে জাতিসংঘভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা সর্বজনীন স্বাস্থ্য কর্মসূচি অর্জনের অভিন্ন লক্ষ্যের অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার ভিত্তি। খবর : বাসস।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে ইউএইচসি ও এসডিজি অর্জনে

প্রতিটি দেশের জন্য স্বাস্থ্যসেবা অর্থায়ন কৌশল প্রণয়নে কার্যকর বৈশ্বিক অংশীদারত্ব গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের ইকোসোক চেম্বারে গতকাল সোমবার সর্বজনীন স্বাস্থ্য কর্মসূচির (ইউএইচসি) ওপর উচ্চপর্যায়ের বৈঠকের পাশাপাশি ‘মাল্টি স্টেকহোল্ডার প্যানেল’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানে সহসভাপতিত্ব করেন।
স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সাঞ্চেজও ‘ইউএইচসি সমতা, অংশীদারত্বমূলক উন্নয়ন ও সবার জন্য সমৃদ্ধির চালিকাশক্তি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে সহসভাপতিত্ব করেন।
অনুষ্ঠানে প্যানেল আলোচকদের মধ্যে ছিলেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল বাশেলে, ম্যালেরিয়া নির্মূলে আরবিএম অংশীদারত্ববিষয়ক বোর্ডের সভাপতি মাহা তাইসির বারাকাত, অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের নির্বাহী পরিচালক উইনি বায়ানিমা ও কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের টেকসই উন্নয়নকেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক জেফেরি সাখস।
এর আগে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৪তম অধিবেশনে যোগ দিতে গত রবিবার নিউইয়র্ক পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রবিবার স্থানীয় সময় বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে ইত্তেহাদ এয়ারলাইন্সের একটি বিমান প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন এবং জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন প্রধানমন্ত্রীকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান।
পরে একটি সুশোভিত মোটর শোভাযাত্রাসহকারে প্রধানমন্ত্রীকে লোটে নিউইয়র্ক প্যালেস হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সফরকালে তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন। হোটেলে পৌঁছলে নিউইয়র্কের স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা প্রধানমন্ত্রীকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এর আগে প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে একদিনের যাত্রাবিরতি শেষে রবিবার বেলা পৌনে ১১টায় নিউইয়র্কের উদ্দেশে যাত্রা করেন।
প্রধানমন্ত্রী ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের ৭৪তম বার্ষিক অধিবেশনে ভাষণ দেবেন। একই দিনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পরদিন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। এ ছাড়াও বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। এবার দুটি সম্মাননাও গ্রহণ করবেন তিনি। ১ অক্টোবর দেশে ফিরবেন তিনি।

advertisement