advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

র‌্যাবের ধাওয়ায় পুকুরে ঝাঁপ যুবকের

বরিশাল প্রতিনিধি
৯ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ৯ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০৭
advertisement

বরিশালের গৌরনদীতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সদস্যদের তাড়া খেয়ে পুকুরে ঝাঁপ দেওয়ার তিন দিন পর এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুর থেকে শামীম হাওলাদারের (২৮) ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

র‌্যাবের দাবি, নিহত শামীম মাদক বিক্রেতা ও একাধিক মামলার আসামি। গত রবিবার মাদক কেনাবেচার সময় ধরতে গেলে ভয়ে পুকুরে ঝাঁপ দেন শামীম। শামীম উপজেলার বেজগাতি গ্রামের মোখলেছ হাওলাদারের ছেলে। এ ঘটনায় গৌরনদী থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। নিহতের মা খাদিজা বেগম বলেন, র‌্যাবের তাড়া খেয়ে

আমার ছেলে শামীম পুকুরে ঝাঁপ দেয়। তিন দিন পর আজ (মঙ্গলবার) তার মৃতদেহ পাওয়া যায়।

স্থানীয়রা জানান, গত ৫ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টার দিকে সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুর পাড়ে কয়েক ব্যক্তি মাদক কেনাবেচা করছিল। একপর্যায়ে র‌্যাব সদস্যের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা দৌড় দেয়। এ সময় শামীমসহ দুজন পুকুরে ঝাঁপ দেয়।

এ সময় র‌্যাব সদস্যরা স্থানীয়দের নিয়ে টর্চলাইট জ্বালিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা পুকুরের চারপাশ খোঁজাখুঁজি করে কাউকে না পেয়ে ফিরে যান।

পরে ধারণা করা হয়, অন্ধকারের মধ্যে পুকুর থেকে দুই ব্যক্তিই পালিয়ে গেছেন। এ ঘটনার তিন দিন পর নিখোঁজ শামীমের ভাসমান মরদেহ পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়।

গৌরনদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম সরোয়ার জানান, উপজেলার বেজগাতি গ্রামে শামীম হাওলাদারের মরদেহ সুন্দরদী গ্রামের মুন্সীবাড়ির পুকুরে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে শামীমের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করে। তিনি মাদক বিক্রেতা ও একাধিক মামলার আসামি ছিলেন।

এ ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই শফিকুল ইসলাম সাকিব বাদী হয়ে থানায় একটি ইউডি মামলা করেছেন। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ দুপুরে শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠনো হয়েছে।

advertisement