advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তারকাদের প্রতিবাদ

বিনোদন সময় ডেস্ক
৯ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ৯ অক্টোবর ২০১৯ ০০:১১
advertisement

আবরারকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে জনপ্রিয় নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী লিখেছেন, ‘বুয়েটের নিউজটা মাত্র দেখলাম। দেখে গলাটা শুকাইয়া গেল। এই সমাজই তো আমরা সবাই মিলে বানাচ্ছি, নাকি? যেখানে আমার মতের বিরোধী হলে তাকে নির্মূল করা আমার পবিত্র দায়িত্ব। আমাদের সামাজিক-রাজনৈতিক-ধর্মীয় নেতারা সবাই মিলে তো এত বছর এই কামই করছি। এই ভাবেই একটা প্রজন্ম বানাইছি! আর আমাদের এই নির্মূলবাদী মন বানানো হইছে বাংলার বুদ্ধিজীবীদের ওয়ার্কশপে! তাই আমি তোমাদের অভিশাপ দেই! আমি অভিশাপ দেই কারণ তুমি এই ঘৃণা আর নির্মূল তত্ত্বকে মহৎ বানিয়ে প্রচার করেছ দেশের নামে, জাতীয়তার নামে, ধর্মের নামে, লিঙ্গের নামে, আমার নামে, তোমার নামে! আমি অভিশাপ দেই তাদের যারা আমাদের সমাজটাকে এই জায়গায় এনে দাঁড় করালো, যেখানে অপ্রিয় কথা বলার জন্য সহপাঠীকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়! আমি অভিশাপ দেই, অভিশাপ দেই, অভিশাপ দেই! কারণ আমার কিচ্ছু করার ক্ষমতা নাই, কেবল অভিশাপ দেওয়া ছাড়া!’

আবেগাপ্লুত হয়ে অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন লিখেছেন, “আবরারের কথা ভাবি আর আমার পুত্রদ্বয়ের মুখের দিকে তাকাই। আমার বুক কাঁপে। বাচ্চা দুটোর পিঠ হাত-পা’র ওপর হাত বুলিয়ে দেই। ছোটবেলায় এ রকম ছোট ছোট হাত পা-ই তো ছিল আবরারের! তার মা কত রাত পিঠে হাত বুলিয়ে ঘুম পাড়িয়ে দিয়েছে তাকে! একেকটা আঘাতে ছেলেটা কি ‘মা গো’ বলে চিৎকার দিয়েছিল? ‘মা গো’ ডাক শুনে খুনি ছেলেগুলোর কি একটুও নিজের মা-এর কথা মনে পড়েনি! ঠিক কতবার, কতক্ষণ ধরে, কতটুকু আঘাত করলে ২০/২১ বছরের একটা তরুণ ছেলে মরেই যায়! আমি আর ভাবতে পারি না।”

আবরারের মা ও বাবার ক্রন্দনরত দুটি ছবি শেয়ার করে নাট্যকার মাসুম রেজা লিখেছেন, ‘কান্দিগো মা, কান্দি পিতা, কাঁদিয়া জুড়াই প্রাণ/কবরে শুইয়েছ যারে সে তো আমাদেরও সন্তান।’

অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা নওশীন লিখেছেন, ‘কতটা মারলে একটা মানুষ মরে যায়? ভাবতেই গা শিউরে ওঠে।’ কণ্ঠশিল্পী প্রীতম আহমেদ সমাজের দিকে আঙুল তুলে লিখেছেন, ‘হত্যা বা খুন নিয়ে কথা না বলাই ভালো। বাড্ডায় রানু বা বুয়েটে আবরারকে এরা খুব স্বাভাবিকভাবেই হাসতে হাসতে মেরে ফেলবে। কারণ এই সমাজটাই এখন খুনি।’

আবরারের মধ্যে নিজের ছোট ভাইকে খুঁজে পান অভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ। তিনি লিখেছেন, ‘আবরার ছেলেটা মিমের (আমার ভাই) বয়সী। যতবার ওর নিউজ পড়ছি, আমার ভাইটার চেহারা দেখছি। অসুস্থ লাগছে এখন।’ আবরারের খুনের বিচার দাবি করে নির্মাতা রেদওয়ান রনি লিখেছেন, ‘এ কোন বাংলাদেশের দিকে যাচ্ছি আমরা? ভিন্নমত হলেই পিটিয়ে মেরে ফেলবেন? অতি উৎসাহী জানোয়ারগুলো দেশের কত বড় ক্ষতি করছে জানে? দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই, অবিলম্বে।’

advertisement