advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দাবি না মানলে বুয়েটের সব ভবনে তালা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
১০ অক্টোবর ২০১৯ ১২:৫৪ | আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০১৯ ১৫:৪৮
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সব ভবনে তালা ঝুলানোর হুঁশিয়ারি আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শুক্রবারের মধ্যে উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম কথা না বললে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সব ভবনে তালা ঝুলানোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে তারা এ ঘোষণা দেন।

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের জেরে আজ চতুর্থদিনের মতো আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এদিন আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে- বুয়েটের ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম যদি আগামীকাল ২টার মধ্যে তাদের সঙ্গে দেখা না করেন তাহলে বুয়েটের সব ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হবে।

এ সময় দাবি পূরণ না হলে তারা সকল প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে বাধ্য হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ‌‘দাবি না মানলে আমরা বাধ্য হবো ১৪ তারিখ যেন কোনো ভর্তি পরীক্ষা না হয় তার ঘোষণা দিতে।’

শিক্ষার্থীরা বলেন, ‌‘আমরা আশা করছি একাডেমিক কাউন্সিল ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে একটি অফিসিয়াল স্টেটমেন্ট দেবে। কারণ আমরা চাই না দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীরা কোনো ধরনের সমস্যায় পড়ুক।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবি বিষয়ে প্রশাসন থেকে এখন পর্যন্ত কোনো কিছু অবহিত করা হয়নি যা অত্যন্ত দুঃখজনক। সেই সঙ্গে বুধবার কুষ্টিয়ায় ফাহাদের পরিবারের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা জানানো হয়।

ভারতের সঙ্গে সাম্প্রতিক কয়েকটি চুক্তি নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্যের সূত্র ধরে শিবির সন্দেহে আবরারকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে বুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন। গতকাল রোববার রাতে শেরে বাংলা হলে এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। এ ঘটনায় পরদিন সোমবার থেকেই আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে হত্যার ঘটনার পর উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সামনে না আসায় ক্ষোভ জানান শিক্ষার্থীরা। পরে উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকেল ৫টার মধ্যে উপাচার্য সশরীরে এসে এ বিষয়ে জবাবদিহি না করলে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন তারা।

এরপর প্রায় ৪০ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার পর উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সামনে আসেন। ওই সময় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন উপাচার্য। এদিন তাকে প্রায় ৪০ মিনিট অবরুদ্ধও করে রাখেন শিক্ষার্থীরা। এদিকে আবরার হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৫ জনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

advertisement