advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শনিবার জনসমাবেশ করবে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক
১০ অক্টোবর ২০১৯ ২০:৪১ | আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০১৯ ২০:৪১
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। পুরোনো ছবি
advertisement

ভারতের সঙ্গে সম্পাদিত ‘দেশবিরোধী’ চুক্তি বাতিল এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে দুই দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি।

আগামী শনিবার ঢাকাসহ মহানগর সদরে এবং রোববার জেলা সদরে এ জনসমাবেশ  অনুষ্ঠিত হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে দুই দেশের মধ্যকার চুক্তি প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি বলছে, দেশের স্বার্থ অনিশ্চয়তায় ঝুলিয়ে অন্যের স্বার্থ পূরণ করা অনির্বাচিত সরকারের নতজানু নীতির প্রমাণ।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির পক্ষ থেকে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

মোশাররফ বলেন, ‘দেশের স্বার্থ বিরোধী চুক্তি বাতিল ও এই চুক্তির বিরোধিতার কারণে শহীদ আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে আমরা আগামী শনিবার ঢাকাসহ দেশের সকল মহানগর সদরে এবং আগামী রোববার সকল জেলা সদরে জনসমাবেশ অনুষ্ঠানের কর্মসূচি ঘোষণা করছি।’

ড. মোশাররফ আরও বলেন, ‘দেশ ও দেশের মানুষকে বাঁচাতে দলমত নির্বিশেষে দেশবাসীকে গণতন্ত্রের মা আপোষহীন নেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত এবং জোরপূর্বক ক্ষমতা দখলকারী অবৈধ সরকারের পতনের মাধ্যমে গণতন্ত্র তথা জনগণের কাছে দায়বদ্ধ দেশপ্রেমিক সরকার প্রতিষ্ঠার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। ইতিহাসের অমোধ সত্য, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে গণতন্ত্রের জয় অবিসম্ভাবী।’

অসমচুক্তি বাতিল চাই

খন্দকার মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, ‘আমরা নিকট প্রতিবেশী ভারতের সাথে সমতাভিত্তিক সুসম্পর্ক চাই। কিন্তু এই সরকার যা করছে তাতে দেওয়া-নেওয়ার বিষয়ে নেই-আছে শুধু দেওয়ার। আমরা প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক ভারত সফরের সময়ে স্বাক্ষরিত সকল চুক্তি ও সমঝোতার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাই এবং দেশের ও দেশের স্বার্থ হানিকর সকল চুক্তি বাতিল চাই।’

দেশ  ও দেশের জনগণের স্বার্থ বিরোধী এসব চুক্তির প্রতিবাদে দেশবাসী ফুঁসে উঠেছে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, ‘সচেতন ছাত্র সমাজ আন্দোলনে সোচ্চার হয়েছে। সমালোচনায় ভীত সরকার তার দলীয় লাঠিয়ালদের দিয়ে ফেসবুকে প্রতিবাদী পোস্ট দেওয়ার জন্য বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে খুন করেছে। কিন্তু এই নৃশংস হত্যাকাণ্ড আন্দোলনের আগুনে ঘৃতাহুতি দিয়েছে মাত্র। কাউকে ভীত করতে পারেনি।’

ড. মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আজ গোটা দেশের জনগণ এই সরকারকে দেশ ও জনগণের স্বার্থ বির্সজনকারী এক ক্ষমতালিপ্সু শাসক মনে করে। জনগণ গণতন্ত্র পুনঃরুদ্ধারের মাধ্যমে এই দুরাচারী শাসকের পতন চায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ এলপিজি আমদানিকারক দেশ হয়ে প্রতিবেশীর প্রয়োজনে তা রপ্তানীর জন্য ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত ওমেরা পেট্টোলিয়াম লিমিটেড এবং বেক্সিমকো এলপিজি ইউনিট-১ কে লাভবান করার উদ্যোগ ব্যক্তি ও গোষ্ঠী বিশেষকে লাভবান করবে-দেশকে নয়। দেড় হাজার কিলোমিটার পথের স্থলে এখন মাত্র ২০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে এলপিজি গ্যাস ভারত পৌঁছাবে।’

মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘তাদের (ভারত) এই সুবিধা দেওয়ার বিনিময়ে ঠাকুর শান্তি পুরস্কার ছাড়া আমরা কি পেলাম? এর আগের বার ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, “আমরা যা দিয়েছি তা ভারত চিরদিন মনে রাখবে।” তাহলে এবার আরও এতো কিছু দেওয়ার কি প্রয়োজন ছিলো? তিনি বলেছিলেন, “দেশের স্বার্থে বিদেশীদের গ্যাস দিতে রাজি হননি বলে ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসতে পারেননি।” এবার আমদানি করা ডিউটি ফ্রি এলপিজি দেওয়ার উদ্দেশ্য তাহলে কি?’

সংবাদ সম্মেলনে আরও ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাহজাহান, যুগ্মমহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ প্রমুখ। 

advertisement