advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পদপ্রত্যাশীরা চান ৫০ পেরোলে যুবলীগ নয়

মুহম্মদ আকবর
১৪ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৪ অক্টোবর ২০১৯ ১০:২৯
ছবি : সংগৃহীত
advertisement

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগের বয়সসীমা চান পদপ্রত্যাশীরা। আগামী ২৩ নভেম্বর যুবলীগের অনুষ্ঠেয় কংগ্রেসকে (সম্মেলন) সামনে রেখে সংগঠনকে বিতর্কমুক্ত করার পাশাপাশি বয়সসীমা নির্ধারণে জোর দাবি তুলেছেন পদপ্রত্যাশীরা। সে ক্ষেত্রে যুবলীগের বয়স অনূর্ধ্ব ৫০ নির্ধারণের পক্ষে সংগঠনটির বেশিরভাগ নেতাকর্মী। এটি হলে শক্তিশালী যুব সংগঠন হিসেবে যুবলীগ সমহিমায় উদ্ভাসিত হবে বলে মত সংশ্লিষ্টদের।

তারা বলছেন, দেশের ঐতিহ্যবাহী সংগঠনটি গুটিকয়েক সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও দুর্নীতিবাজের কারণে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। একই সঙ্গে হাস্যকর যুক্তি দিয়ে বছরের পর বছর বয়োবৃদ্ধরা সংগঠনটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এতে করে নানামুখী প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছে সংগঠনটি।

সংগঠনটির দুজন প্রেসিডিয়াম সদস্য আমাদের সময়কে বলেন, ছাত্রলীগের যেমন একটা বয়সীমা আছে, যুবলীগেরও একটা বয়সসীমা ছিল। কিন্তু কী এক অজ্ঞাত কারণে তা বাদ দেওয়া হয়েছে। চার দশক ধরে বয়স নির্ধারণ না করেই চলছে যুবলীগ। বর্তমানের চেয়ারম্যান, সাধারণ সম্পাদকসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক পদেই রয়েছেন ষাটোর্ধ্ব। কারও কারও

বয়স সত্তরেরও বেশি। তাদের প্রশ্ন, এতে করে কী প্রমাণিত হয়? দেশে যুবলীগ করার মতো যোগ্য যুবক নেই?

জানা গেছে, স্বাধীনতা-উত্তরকালে যুবকদের রাজনৈতিক শিক্ষায় সচেতন করার লক্ষ্যে স্বাধীনতা আন্দোলন ও সশস্ত্র সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনি প্রতিষ্ঠা করেন যুবলীগ। প্রথম জাতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়

১৯৭৪ সালে। তখন এর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন শেখ ফজলুল হক মনি। তার বয়স ছিল ৩৩ বছর। প্রথম কংগ্রেসে সংগঠনটির গঠনতন্ত্রে বয়সসীমা ছিল ৪০ বছর। ১৯৭৮ সালে সংগঠনের দ্বিতীয় কংগ্রেসে বয়সসীমার বিধানটি বাদ দেওয়া হয়।

গঠনতন্ত্রে বয়সসীমা না থাকা সত্ত্বেও সত্তরোর্ধ্ব বয়সী বর্তমান যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে বহুবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে। তিনি রসিকতা করে বারবারই বলেছেন, ‘সৃষ্টিশীল মানুষ মাত্রই যুবক। আমি সৃষ্টিশীল মানুষ। সুতরাং আমিও যুবক।’ কখনো কখনো তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার দোহাইও দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন এটি। তাই এ বিষয়ে সার্বিক এখতিয়ার নেত্রী শেখ হাসিনার। আমরা তার নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করি।

যুবলীগের সাবেক নেতারাও বয়স নির্ধারণের পক্ষে। যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান ও বর্তমান গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু আমাদের সময়কে বলেন, ‘আমি তো এখন যুবলীগে নেই। আওয়ামী লীগেও নেই। সুতরাং এ বিষয়ে কথা বলা কতটুকু যুক্তিযুক্ত জানি না। তবে এটা সত্য, বাংলাদেশের যুব সংগঠনগুলোতে বয়সসীমা নেই। এটা থাকা উচিত।

যুবলীগের সাবেক চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, যুবলীগ করার একটা বয়স নির্ধারণ করে দেওয়া উচিত। এ বিষয়ে নেত্রীর কাছে সুপারিশ করবেন বলেও জানান তিনি।

advertisement