advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সল্টলেকে জামালদের অগ্নিপরীক্ষা

মামুন হোসেন
১৫ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ অক্টোবর ২০১৯ ১৬:৫১
advertisement

 

জামাল ভূঁইয়ার সাহসের তারিফ করতে হয়। ভারতের মাটিতে বসে ভারতকেই হারানোর দুঃসাহস দেখাচ্ছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক! বিশ^কাপ বাছাইপর্বে কলকাতার সল্টলেক (যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গন) স্টেডিয়ামে সুনীল ছেত্রিদের হারিয়ে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ার দৃপ্ত ঘোষণা লাল-সবুজ অধিনায়কের। আজ রাত ৮টায় ম্যাচটি শুরু হবে। ৮৫ হাজারেরও অধিক দর্শক মাঠে উপস্থিতির কথা ইতোমধ্যে সল্টলেকের আকাশে-বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে। জামালদের সমর্থন দিতে বাংলাদেশ থেকেও অনেক ফুটবলপ্রেমী এখন কলকাতায় অবস্থান করছেন।

ডাগআউটে আগ্রাসী দেখালেও মাঠের বাইরে অত্যন্ত শান্ত-শিষ্ট, হাসি-খুশি নিপাট এক ভদ্রলোক বাংলাদেশের প্রধান প্রশিক্ষক জেমি ডে। মনে মনে ভারতবধের ছক কষলেও মুখে নিজেদের আন্ডারডগ বলে দাবি জেমির। কাল ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে যেমন বলে গেলেন, নিশ্চিতভাবে এই ম্যাচে ফেভারিট ভারত। সম্প্রতি দারুণ ফুটবল খেলছে দলটি। কাতারের সঙ্গে ড্র তার জ্বলন্ত উদাহরণ। তা ছাড়া নিজেদের মাঠে ৮৫ হাজার দর্শকের সামনে খেলবে ওরা। ঘরের মাঠ, ঘরের দর্শকÑ সব মিলে এগিয়ে থাকবে ভারতই। তবে নিজের দলকেও পিছিয়ে রাখছেন না জেমি। ম্যাচটি যে কঠিন হবে সে কথা ভারতে পা রাখার পর থেকেই বলছেন।

জেমি একেবারে ভুলও বলেননি। পরিসংখ্যান, পূর্ব ইতিহাস, সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স, র‌্যাংকিং কিংবা শক্তিমত্তাÑ সব দিকেই এগিয়ে ভারত। বাংলাদেশ-ভারতের ফুটবলীয় ইতিহাসের বয়স ৪১ পেরিয়েছে। চার দশকে দুদল ২৮টি ম্যাচ খেলেছেÑ যাতে বাংলাদেশ জিতেছে মাত্র ৩টি ম্যাচে, ভারতের জয় ১৫ ম্যাচে। দুদলের খেলা বাকি ১০টি ম্যাচ ড্রয়ে নিষ্পত্তি হয়েছে। র‌্যাংকিং যদিও একটি সংখ্যামাত্র, তার পরও এটি বিবেচনায় আনলে বেশ ভালোই পিছিয়ে জেমির দল। ফিফা র‌্যাংকিংয়ে ভারত যেখানে ১০৪ নম্বরে, সেখানে বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৭-তে।

বিশ^কাপ বাছাইপর্বের হিসাবেও দুদলের পার্থক্য চোখে পড়ার মতো। ২০২২ কাতার বিশ^কাপের টিকিট পেতে এবার ‘ই’ গ্রুপ থেকে লড়ছে বাংলাদেশ ও ভারত। যেখানে ওমান, বিশ^কাপ আয়োজক কাতার এবং আফগানিস্তানের মতো শক্তিশালী দলও রয়েছে। ভারত এবং বাংলাদেশ ইতোমধ্যে দুটি করে ম্যাচ খেলেছে। দুই ম্যাচ থেকে বাংলাদেশের প্রাপ্তি শূন্য। ভারত অবশ্য ১ পয়েন্ট অর্জন করেছে। গ্রুপের সবচেয়ে শক্তিশালী দল ওমানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের বাছাইপর্ব শুরু ভারতের। ওই ম্যাচে লড়াই করে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে দলটি। পরের ম্যাচে কাতারে গিয়ে গোলশূন্য ড্র করে ১ পয়েন্ট তুলে নিয়েছে সুনীল ছেত্রির দল।

উল্টো চিত্র বাংলাদেশের। আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিরপেক্ষ ভেন্যু তাজিকিস্তানের দুশানবেতে ১-০ গোলের হার দিয়ে বিশ^কাপ মিশন শুরু জামাল, মামুনুলদের। পরের ম্যাচে ঘরের মাঠ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে কাতারের বিপক্ষে হার ২-০ গোলের। টানা দুই ম্যাচ হেরে এখন কোণঠাসা দল। পরবর্তী রাউন্ডে যেতে হলে ভারতের বিপক্ষে পয়েন্ট ভিন্ন বিকল্প কোনো পথ খোলা নেই জেমির সামনে। ফিফা র‌্যাংকিং কিংবা পূর্ব ইতিহাসে ভারত এগিয়ে থাকলেও একদিক থেকে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে লাল-সবুজরা। দুদল সম্প্রতি কোনো ম্যাচে মুখোমুখি হয়নি। সবশেষ দেখার বয়সও পাঁচ বছর পেরিয়ে গেছে। তা ছাড়া দুদলের শেষ দুই ম্যাচে জয় নেই কারোরই। ড্রয়ে মাঠ ছেড়েছে তারা। স্বস্তির এখানেই শেষ নয়, সম্প্রতি জেমির অধীনে দুর্দান্ত খেলছে তরুণ-অভিজ্ঞদের মিশেলে গড়া বাংলাদেশ দলটি। গত এক বছরের দারুণ কিছু জয় পেয়েছে। ভারতে আসার আগে কাতারের বিপক্ষে মন জয় করা খেলা উপহার দিয়েছেন জামালরা।

ভারত ম্যাচ সামনে রেখে কোনো চাপই অনুভব করছেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক জামাল। বরং চাপে থাকবে নাকি স্বাগতিক দলইÑ এমনটাই কাল গণমাধ্যমকে জানান। কোনো চাপ অনুভব করছি না। আমি ব্যক্তিগতভাবে তো মোটেই না। আমি মনে করি চাপটা ভারতের ওপর। তারা যদি ভালো খেলতে না পারে তা হলে দর্শকরা তাদের বিপক্ষে চলে যাবে। আমি সবাইকে বলেছি, তোমরা ম্যাচটি উপভোগ করো। এমন সুযোগ সব সময় আসে না। তিন পয়েন্ট তাড়া করো। আর ভারত অবশ্যই ফেভারিটÑ এটা মিথ্যে নয়।

জামাল নিজেকে যতই চাপমুক্ত রাখার চেষ্টা করুন, সুনীল ছেত্রি, গুরপ্রিত সিং, প্রীতম কোটাল, অনুরুদ্ধ থাপা, উদানা সিংদের ভয় না পেয়ে উপায় আছে। এক সুনীলই তো দুদলের পার্থক্য গড়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। ৩৫ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড শতকের ওপর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ফেলেছেন। দলের বাকিরা নবীন-তরুণ হলেও সুনীল বেশ অভিজ্ঞ। গোল করছেন হরহামেশা। বিশ^কাপ বাছাইপর্বে ওমানের মতো দলের বিপক্ষেও গোলের রেকর্ড রয়েছে তারা।দুদলের কথার লড়াইয়ে সমীহের ইঙ্গিত থাকলেও সল্টলেকে যে আজ আগুন লড়াই হবেÑ কদিন ধরে সেই উত্তাপ বেশ ভালোই ছড়াচ্ছে!

advertisement