advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে ‘হত্যা’

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি
১৬ অক্টোবর ২০১৯ ২১:০৯ | আপডেট: ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ২১:০৯
প্রতীকী ছবি
advertisement

কিশোরগঞ্জে শ্বশুরবাড়িতে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ কম্বল দিয়ে মুড়িয়ে বিছানায় রেখে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। আজ বুধবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহত নারীর নাম জুয়েনা আক্তার (১৯)। তিনি সদর উপজেলার মহিনন্দ কাশোরারচর গ্রামের অলি নেওয়াজের মেয়ে। অন্যদিকে স্ত্রী হত্যায় অভিযুক্ত স্বামী সুমন (২১) পার্শ্ববর্তী চংশোলাকিয়ার আব্দুর রহিম ভুট্টোর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, গত রোজার আগে অটোরিকশাচালক সুমনের সঙ্গে জুয়েনার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের সংসারে অভাব-অনটন লেগেই ছিল। এর মধ্যেই জুয়েনা অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় পারিবারিক কলহের জেরে দিন ১৫ আগে জুয়েনা তার বাবার বাড়ি কাশোরারচর গ্রামে চলে যায়।

জুয়েনা রাগ করে বাবার বাড়ি চলে গেলেও সুমন নিয়মিত শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে সেখানে রাতযাপন করত। মঙ্গলবার রাতে অন্যান্য সময়ের মতো সুমন শ্বশুরবাড়ি কাশোরারচর গ্রামে যায়। সেখানে স্ত্রী জুয়েনার ঘরে যথারীতি অবস্থান করার পর ফজরের নামাজের পর সে বেরিয়ে যায়।

আজ বুধবার সকালের দিকে বাবা অলি নেওয়াজ মেয়ের ঘরে গিয়ে বিছানায় কম্বল মোড়ানো অবস্থায় মরদেহ দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক জানান, নিহতের শরীরের কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত স্বামী সুমনকে ধরতে পুলিশ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

advertisement