advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কিশোরগঞ্জে আইনজীবীকে ‘হেনস্তা’

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি
১৮ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ০০:১০
advertisement

কিশোরগঞ্জে বিচারকের নির্দেশে এক আইনজীবীকে আটকের পর হাতকড়া পরিয়ে আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে রাখার প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবারও বিচার কাজে অংশ নেননি আইনজীবীরা। ফলে দ্বিতীয় দিনের মতো কার্যত অচল ছিল আদালতের কার্যক্রম।

কিশোরগঞ্জ জজকোর্টে আদালত চলাকালীন বারের সিনিয়র এক আইনজীবী একটি মামলার নথি দেখাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট ঘটনায় আইনজীবীরা এ কর্মবিরতি পালন করছেন। এ ছাড়া এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ২-এর বিচারক (জেলা জজ পদমর্যাদার) মোহাম্মদ সোলাইমানের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে আইনজীবী মীর মো. ইকবাল হোসেন বিপ্লব বাদী হয়ে ১নং আমল গ্রহণকারী আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত গতকাল বিকাল পর্যন্ত কোনো আদেশ দেননি।

এদিকে আইনজীবীর সঙ্গে বিচারকের অসৌজন্যমূলক আচরণ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের ঘটনায় আদালতের সার্বিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। বৃহস্পতিবার আদালত পাড়ায় এক ধরনের সুনশান নীরবতা লক্ষ্য করা গেছে। এ ছাড়া আদালতে যে কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এখনো সংশ্লিষ্ট আদালতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

আদালতের একটি সূত্র জানায়, পরিস্থিতি মোকাবিলায় ইতোমধ্যে জেলা আইনজীবী সমিতির নেতাদের সঙ্গে জেলা ও দায়রা জজসহ সংশ্লিষ্টদের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এতে যে কোনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আইনজীবীদের সহনশীল আচরণসহ নানা বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে আল্টিমেটামের ব্যাপারে আদালত কর্তৃপক্ষও কোনো বিবৃতি দেয়নি। এ ছাড়া ঘটনার বিষয়ে বিচারক মোহাম্মদ সোলাইমানের বক্তব্য জানাও সম্ভব হয়নি।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মিয়া মো. ফেরদৌস বৃহস্পতিবার দুপুরে বলেন, সমিতির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ২-এর কোর্ট বর্জন করাসহ অন্যান্য কার্যক্রম থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া বিচারকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়েরসহ তাকে দ্রুত চাকরিচ্যুত করার জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধান বিচারপতি এবং আইনমন্ত্রীকে সার্বিক বিষয়টি অবহিত করারও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

advertisement