advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাসস্ট্যান্ডের মালিকানা নিয়ে সংঘর্ষে কিশোর নিহত

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি
১৮ অক্টোবর ২০১৯ ২১:৩৫ | আপডেট: ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ০০:২৫
জগন্নাথপুরে নিহত সাব্বির। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বাসস্ট্যান্ডের মালিকানা নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় এক মাদ্রাসাছাত্র গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আরও দুজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলা রানীগঞ্জ ইউনিয়নের আলামপুর গ্রামে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম সাব্বির মিয়া (১০)। সে নবীগঞ্জের কামারগাঁও নগরকান্দি গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে। আলমপুর গ্রামের একটি মাদ্রাসার তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র ছিল সে। মামা ইজাজুল ইসলামের বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করত সাব্বির।

পুলিশ জানায়, আলমপুর গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা মজনু মিয়া ও তার আপন ভাই খালেদ মিয়ার মধ্যে স্থানীয় কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী বাসস্ট্যান্ডের মালিকানা জায়গা নিয়ে বিরোধ চলছিল। সেখানে ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন মজনুর ছেলে নোমান আহমদ।

বিরোধকে কেন্দ্রে করে আজ বিকেলে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বৈঠক বসে। সেখানে মজনু মিয়া উপস্থিত ছিলেন না। বৈঠকে বাসস্ট্যান্ডের ম্যানেজার পদ থেকে নোমানকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

পরে বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে বাসস্ট্যান্ডের শ্রমিক নেতা ইজাজুল ইসমাম, মমরাজ মিয়াসহ কয়েকজন মজনুর বাড়িতে যান। তাদের কথাবার্তার একপর্যায়ে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন তারা।

সংঘর্ষের সময় সেখানে দাড়িয়ে ছিল সাব্বির। এ সময় গোলাগুলি শুরু হলে সাব্বিরও গুলিবিদ্ধ হয়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। একই সময় আলমপুর গ্রামের আকরব আলী (২৭) ও মুজাম্মেল হোসেন (৩০) নামে আরও দুইজন গুলিবিদ্ধ হন। সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাদের স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত সাব্বিরের মামা ইজাজুল ইসলাম বলেন, ‘বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে আমরা মজনু মিয়ার বাড়িতে গিলে তিনি আমাদেরকে গালিগালাজ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে সংঘর্ষে প্রতিপক্ষের লোকজন বন্দুক দিয়ে গুলি ছুঁড়তে শুরু করে। এ সময় সেখানে দাঁড়িয়ে ছিল আমার ভাগনে সাব্বির। তার গায়ে গুলি লাগলে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।’

এ ঘটনার বিষয়ে কথা বলতে আওয়ামী লীগ নেতা মজনু ‍মিয়ার মোবাইলে যোগযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য বজলু মিয়া জানান, দুই ভাইয়ের বিরোধের জেরে সংঘর্ষ বাধে। এতে সাব্বিরের মৃত্যু হয়।

জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক শারমিনা আরা জানান, সাব্বির গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। তার মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন অংশে ছিটা গুলির আঘাতের চিহ্ণ রয়েছে। এ ঘটনায় আরও যারা আহত হয়েছেন, তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

জগন্নাথপুরের সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মাহমুদুল হাসান চৌধুরী রাতে আমাদের সময়কে জানান, জগন্নাথপুরে বাসস্ট্যান্ডের মালিকানা নিয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় একটি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত হচ্ছে। বর্তমানে সেখানকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

advertisement