advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সাধারণ ভোক্তারা অসহায় হয়ে পড়েছে : ক্যাব

২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:২১
advertisement

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভোক্তা হিসেবে আমরা প্রতিনিয়ত প্রতারিত ও ঠকছি। চারদিকে ভেজালের দৌরাত্ম্যে ও অসাধু ব্যবসায়ীদের একছত্র আধিপত্যের কারণে সাধারণ ভোক্তারা ক্রমেই অসহায় হয়ে পড়েছে। ভেজালের পরিধি এখন আর খাদ্যে ও ভোগ্যপণ্যে সীমাবদ্ধ নেই, জীবনরক্ষাকারী ওষুধ ও স্বাস্থ্যসেবায়ও এর বিস্তৃতি ঘটেছে। ভোক্তাদের অধিকার সংরক্ষণের জন্য সরকার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ নামে একটি যুগান্তকারী আইন প্রণয়ন করেছে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণসহ জনভোগান্তি নিরসনে অনেকগুলো উদ্ভাবনী উদ্যোগ এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মতো কাঠামো প্রতিষ্ঠা হলেও অধিকাংশ ভোক্তারা অসংগঠিত, ঘুমন্ত ও নিষ্ক্রিয় থাকায় এসব সরকারি উদ্যোগের সুফল সাধরণ জনগণ পাচ্ছে না।

গতকাল চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নিরাপদ খাদ্য ও ভোক্তা অধিকার নিশ্চিতে করণীয় নিয়ে এক মতবিনিময়সভায় বিভিন্ন বক্তা এসব কথা বলেন।

বক্তারা আরও বলেন, দেশে কাঁচা মাছ, মাংস থেকে শুরু করে সব ব্যবসায়ী সুসংগঠিত আর ভোক্তা হিসেবে সাধারণ জনগণ সংগঠিত ও শক্তিশালী নয়, বিধায় ব্যবসায়ীরা বারবার বিভিন্ন অজুহাতে জনগণকে জিম্মি করে জনগণের পকেট কাটছে। আর ব্যবসায়ী সংগঠনের চাপে প্রশাসন সেখানে নীরব দর্শক হয়ে থাকছেন। তৃণমূলে সত্যিকারের সুশাসন ও নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠায় অধিকার ভোগ করার পাশাপাশি নাগরিকদের নিজেদের দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন ও সক্রিয় হতে হবে। আর এ কাজে দল-মত, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) হাটহাজারী উপজেলা শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম রাশেদুল আলম। ক্যাব হাটহাজারী উপজেলা শাখার সভাপতি ন ম জিয়াাউল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় মুখ্য আলোচক ছিলেন ক্যাব কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এসএম নাজের হোসাইন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. হাসানুজ্জমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারারম্যান শামীমা আফরিন মুক্তা, ক্যাব চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আলহাজ আব্দুল মান্নান, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট বাসন্তী প্রভা পালিত।

মুল প্রবন্ধ উপস্থাপনায় বলা হয়, অনেকের ধারণা প্রতারিত ও ক্ষতিগ্রস্ত হলে অভিযোগ করে প্রতিকার পাওয়া যাবে না। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর আওতায় একজন ভুক্তভোগী ক্ষতিগ্রস্ত ও প্রতারিত হলে সরাসরি অতিসহজে বিনা কোর্ট ফি ও অ্যাডভোকেট নিযুক্ত ছাড়াই মোবাইল, ফেসবুক, ইন্টারনেট, চিঠির মাধ্যমে অভিযোগ দাখিল করতে পারেন। অভিযোগ প্রমাণিত হলে জরিমানার ২৫ শতাংশ অভিযোগকারী পাবেন। প্রতিসপ্তাহে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়ে গণশুনানি ও মাঠপর্যায়ে বাজার তদারকির মাধ্যমে অভিযোগগুলো দ্রত নিষ্পত্তি করা হচ্ছে। কিন্তু সাধারণ জনগণের মাঝে এ বিষয়ে পরিষ্কার তথ্য না থাকায় জনগণ ভোক্তা অধিকার সুরক্ষায় সরকারের এই যুগান্তকারী উদ্যোগ থেকে তেমন সুফল পাচ্ছে না। অভিযোগ স্থানীয়ভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে, সরকারি সেবা ৩৩৩ অথবা ক্যাবের স্থানীয় শাখার মাধ্যমেও অভিযোগ দাখিল করা যাবে। তাই সাধারণ জনগণ ও ভোক্তাদের অধিকার সংরক্ষণে এই যুগান্তকারী আইন ও সুযোগ সম্পর্কে সর্বসাধারণকে জানানোর জন্য ব্যাপক গণসচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ নেওয়ার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

advertisement