advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘ওমানের সঙ্গে জিততেও পারি’

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:২২
advertisement

বিশ^কাপ বাছাইপর্বে তিন ম্যাচ খেলা হয়ে গেছে বাংলাদেশের। তাতে দুই হারের বিপরীতে ড্র এক ম্যাচে। জয়ের মুখ এখনো দেখেনি জেমি ডের দল। সামনে ওমানের বিপক্ষে ম্যাচ। আগামী ১৪ নভেম্বর ওমানের সিব শহরের আল-সিব স্টেডিয়ামে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে। ৩ নভেম্বর ওমানের রাজধানী মাস্কটের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বে বাংলাদেশ। বাছাইপর্বে হার এবং ড্র জুটেছে জামালদের কপালে। সামনে ম্যাচে (ওমান) তাই জয় প্রত্যাশা করছেন বাফুফের সহ-সভাপতি এবং জাতীয় দল ব্যবস্থাপনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান তাবিথ এ আউয়াল। গতকাল গণমাধ্যমকে এমনটাই জানান তিনি। একই সঙ্গে খেলোয়াড়দের জন্য পর্যাপ্ত অনুশীলন, পুষ্টিকর খাবার এবং বিশ্রামের প্রয়োজনীয়তার কথাও উল্লেখ করেন তাবিথ আউয়াল।

১৫ অক্টোবর ভারতের মাটিতে সব শেষ ম্যাচ খেলে জেমির দল। ওই ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়। ম্যাচের পর পরই ছুটিতে গেছেন প্রধান প্রশিক্ষক জেমি। খেলোয়াড়রা অবশ্য ছুটিতে নেই। জাতীয় দলে থাকা অর্ধেকের বেশি খেলোয়াড় এই মুহূর্তে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্ট নিয়ে ব্যস্ত আছেন; অন্যরা আগামী মৌসুম সামনে রেখে নিজ নিজ ক্লাবের হয়ে অনুশীলনে ব্যস্ত। সামনে ওমান ম্যাচ। সেই ম্যাচ নিয়ে বাফুফের পরিকল্পনা বিষয়ে তাবিথ আউয়াল জানান, ৩ নভেম্বর মাস্কটের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বে দল। ওখানে ক্যাম্প করব, ট্রেনিং করব। ওমানের একটি ক্লাব দলের বিপক্ষে প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলার চেষ্টা করব। তারিখ নির্ধারণ হয়নি। যেভাবে আমরা ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলা উপহার দিয়ে চলেছি, ওমানের বিপক্ষে তেমন খেলাই উপহার দেব দেশকে।

বিশ^কাপ বাছাইপর্বে তিন ম্যাচে সাকল্যে এক পয়েন্ট বাংলাদেশের। ই গ্রুপে পাঁচ দলের মধ্যে পয়েন্ট টেবিলে নিচের দিকে অবস্থান। জিততে না পারলেও হতাশ নন বাফুফে কর্তা তাবিথ আউয়াল। কদিন আগে জেমি ডের দলকে বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসের সেরা দল বলে অ্যাখ্যা দিয়েছিলেন বাফুফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। কাল একই সুরে সুর মেলান তাবিথ আউয়াল। একই সঙ্গে তিনি জানান, খেলায় হার-জিত থাকবেই। তবে আমাদের মূল লক্ষ্য ধারাবাহিকতাটুকু ধরে রাখা। আফগানিস্তান, কাতার এবং ভারতের সঙ্গে পর পর আমরা ভালো খেলেছি। ভারতের বিপক্ষে শেষ মুহূর্তে গিয়ে গোল খেয়েছি। খালি খেলার মধ্যে থাকলে তো হবে না, বিশ্রামেরও প্রয়োজন আছে। এটা খেলারই অংশ। ছেলেরা এখন বিশ্রামে আছে। আমরা ট্রেনিং, রেস্ট এবং নিউট্রিশনের ওপর বেশি জোর দিচ্ছি।

৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে শেখ কামাল টুর্নামেন্টে। ওই টুর্নামেন্টে জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়াসহ, ইয়াসিন খান, ইয়াসিন আরাফাত, আরিফুর রহমান, মোহাম্মদ ইব্রাহিম, মাহাবুবুর রহমান সুফিল, রিয়াদুল হাসান, বিশ^নাথ ঘোষের মতো জাতীয় খেলোয়াড়রা খেলছেন। বাফুফে যেহেতু বিশ্রামের ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে, তা হলে শেখ কামাল টুর্নামেন্টে খেলা খেলোয়াড়দের জন্য বিশ্রাম প্রয়োজন ছিল কিনাÑ এমন প্রশ্নের জবাবে তাবিথ আউয়াল কিছুটা কৌশলী উত্তর দেন, ‘ক্লাব কোচদের বলা আছে অনুশীলনের সময় যেন তাদের ফিটনেস ট্রেনিংয়ের সেশনটা কমিয়ে দেয়। অনেক প্লেয়ার শেখ কামাল টুর্নামেন্টে খেলছে মূলত তাদের কথা মাথায় রেখেই এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। খেলোয়াড়রা খেলার মধ্যে থাকছে এটাও বাড়তি সুবিধা। তিনি আরও যোগ করেন, আমরা এখন প্রতিটি খেলায় চিন্তা করি জেতা সম্ভব। আমরা রক্ষণাত্মক কৌশলে খেলব এই চিন্তা নিয়ে মাঠে নামি না। বর্তমানে আমাদের যে ফর্মেশন আছে, যেভাবে খেলতে যাচ্ছি আমরা এখনো আশাবাদীÑ হেরেছি, ড্র করেছি, সামনে ম্যাচ জিততেও পারি।

আগামী মাসে ঢাকায় আর্জেন্টিনা দল আসছেÑ এমন কথা বেশ কিছু গণমাধ্যমে এসেছে। এ বিষয়ে তাবিথ আউয়ালের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি জানান, আর্জেন্টিনার ঢাকায় আসার ব্যাপারে, প্রীতি ম্যাচ আয়োজনের বিষয়ে আপাতত কোনো আপডেট নেই। একই সঙ্গে ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনোর আগমন বিষয়েও কথা বলেন বাফুফের সভাপতি। ইনফান্তিনোর আগমনকে সৌজন্য সফর হিসেবে উল্লেখ করেন তাবিথ।

advertisement