advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পাথরঘাটায় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের উত্তেজনা : পুলিশের লাঠিচার্জে আহত ৫০

পাথরঘাটা প্রতিনিধি
২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:২৩
advertisement

এক নেতার বহিষ্কারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। বহিষ্কৃত উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মো. এনামুল হোসাইনকে সপদে বহালের দাবিতে গতকাল দুপুরে পাথরঘাটা পৌরশহরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন শেষে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার অনুসারীরা। অন্যদিকে এনামুলের সমর্থক নেতাকর্মীদের এমন কর্মসূচিকে প্রতিহত করতে পাথরঘাটা উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অবস্থান নেন তার প্রতিপক্ষ নেতাকর্মীরা। পরে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় তিনজনকে আটক করে পুলিশ। তবে তাদের নাম জানা যায়নি। যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

১৭ অক্টোবর পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে সাধারণ সম্পাদক মো. এনামুল হোসাইনকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি অনুপ্রবেশকারী। তা ছাড়া তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক নীতিমালা ভঙ্গের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। এর পর থেকে এনামুলের সমর্থক ও প্রতিপক্ষের নেতাকর্মীরা পাথরঘাটায় মুখোমুখি অবস্থানে আছেন।

গতকাল পুলিশের লাঠিচার্জ উপেক্ষা করে এনামুল হোসাইনের নেতৃত্বে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

পরে দুপুর ১টার দিকে পাথরঘাটা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন এনামুল। এতে তিনি দাবি করেন, তিনি অনুপ্রবেশকারী নন, দলীয় শৃঙ্খলাও ভঙ্গ করেননি। নিজেকে আওয়ামী পরিবারের সদস্য দাবি করে এনামুল বলেন, আমি একটি কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্রেরর শিকার। তিনি অভিযোগ করেন, প্রতিপক্ষের ছাত্রলীগ নেতারা তার সমর্থকদের মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন প- করতে নেতাকর্মীদের শহরে প্রবেশ করতে দেয়নি। পথে পথে তাদের ওপর হামলাও করেছে। এতে অন্তত ৩৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

অপরদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান নাইম জানান, পুলিশের লাঠিচার্জে ছাত্রলীগের অন্তত ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৫ জনকে বরিশাল মেডিক্যালে পাঠানো হয়েছে।

তবে পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. হাফিজুর রহমান সোহাগ বলেন, এনামুল ও তার নেতাকর্মীরা যেটা করছেন, তা সম্পূর্ণ সংগঠনবিরোধী। তিনি তার পদ ফিরে পাওয়ার জন্য কেন্দ্রে আপিল করতে পারেন। কিন্তু তিনি তা না করে মিছিল-মিটিং করে পাথরঘাটায় উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা করছেন।

advertisement