advertisement
International Standard University
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ধর্ষণের পর হত্যা কলেজছাত্রীকে

নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০১৯ ০০:২৯
তামান্না আক্তার টিয়া
advertisement

রাজশাহীর বাগমারার তামান্না আক্তার টিয়া (১৭) নামের এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত শুক্রবার রাতে নাটোরের সরকুতিয়া দক্ষিণপাড়ার একটি আম বাগানে এ ঘটনা ঘটে। তামান্না উপজেলার গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের সমষপাড়া গ্রামের আবদুর রশিদের মেয়ে। সে সাধনপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। এ ঘটনায় নলডাঙ্গা থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, বাড়ি থেকে ৫০০ গজ দূরে নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার সরকুতিয়া দক্ষিণপাড়ার একটি বাগানে আমগাছে তামান্নার লাশ ঝুলছিল। সকালে লাশ দেখে স্থানীয়রা নলডাঙ্গা থানায় খবর দেন। পরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

নিহতের বাবা আবদুর রশিদ বলেন, শুক্রবার রাত ১১টার দিকে নলডাঙ্গার সাধনপুরের খিদিরপুর গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের ছেলে শান্ত ইসলাম বাড়িতে এসে তার মেয়েকে হুমকির মুখে তুলে নিয়ে যায়। সকালে আমগাছে মেয়ের লাশ ঝুলতে দেখে স্থানীয়রা খবর দেন।

আবদুর রশিদের স্ত্রী নিলুফা অভিযোগ করেন, টিয়া ও শান্ত একই কলেজে পড়ত। কলেজে গেলে শান্ত মাঝে মধ্যে টিয়াকে ইভটিজিং করত।

স্থানীয়দের অভিযোগের বরাত দিয়ে নলডাঙ্গা থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি-তদন্ত) উজ্জল হোসেন জানান, ঝুলন্ত অবস্থায় লাশের পা সম্পূর্ণ মাটিতে ছিল। এ ছাড়া লাশ নামানোর সময় সাহায্যকারী স্থানীয় নারীরা মেয়েটির গোপনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান বলে জানিয়েছেন। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রামেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। লাশের ময়নাতন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যাবে। এ কর্মকর্তা আরও বলেন, এ ঘটনায় থানায় এখনো মামলা দায়ের করা হয়নি। মামলা হলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

advertisement