advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ওমর ফারুক চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব জব্দ

২২ অক্টোবর ২০১৯ ০২:৩১
আপডেট: ২২ অক্টোবর ২০১৯ ০২:৩১
advertisement

যুবলীগের চেয়ারম্যান পদ থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া ওমর ফারুক চৌধুরীর কর ফাঁকির তদন্ত শুরু হয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স সেল (সিআইসি) তার আয়ব্যয় ও সম্পদের খোঁজে নেমেছে। রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় ওমর ফারুক, তার স্ত্রী, ৩ ছেলে ও দুই কোম্পানির ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়েছে। সম্প্রতি এ সংক্রান্ত চিঠি দিয়ে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া, গতকাল সোমবার শেখ ফজলুর রহমান মারুফ, মোল্লা আবু কাওসার, কাজী আনিসুর রহমান, কে এম মাসুদুর রহমান, কাউন্সিলর পাগলা মিজান ও রাজিব এবং তাদের পরিবার ও মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক হিসাবও জব্দ করা হয়েছে।
ওমর ফারুকের বিষয়ে গত সপ্তাহে ব্যাংকগুলোতে পাঠানো চিঠিতে এনবিআর উল্লেখ করেছে, সরকারের রাজস্ব আদায় নিশ্চিত করার জন্য আয়কর অধ্যাদেশ অনুসারে বর্ণিত ব্যক্তি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে ব্যাংকে

পরিচালিত সব অ্যাকাউন্টে অর্থ উত্তোলন ও স্থানান্তর স্থগিত করতে নির্দেশ দেওয়া হলো। ওই চিঠিতে মো. ওমর ফারুক চৌধুরী, তার স্ত্রী শেখ সুলতানা রেখা, তিন ছেলে আবিদ চৌধুরী, মুক্তাদির আহমেদ চৌধুরী, ইশতিয়াক আহমেদ চৌধুরীর অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়েছে। এ ছাড়া জব্দ করা হয়েছে দুটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান লেক ভিউ প্রপার্টিজ এবং রাও কনস্ট্রাকশন লিমিটেডের অ্যাকাউন্টও। চিঠি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অ্যাকাউন্ট জব্দ এবং অ্যাকাউন্টের সর্বশেষ স্থিতিসহ অন্যান্য তথ্য জরুরি ভিত্তিতে পাঠাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
এদিকে, গতকাল এনবিআরের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেল (সিআইসি) থেকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে এ সংক্রান্ত পৃথক চিঠি পাঠিয়ে শেখ ফজলুর রহমান মারুফ, মোল্লা আবু কাওসার, কাজী আনিসুর রহমান, কে এম মাসুদুর রহমান, পাগলা মিজান ও কাউন্সিলর রাজিব এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।
যুবলীগের প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুর রহমান মারুফ। সিআইসির চিঠি অনুযায়ী মারুফ, তার স্ত্রী সানজিদা রহমান, তাদের দুটি প্রতিষ্ঠান টি-টোয়েন্টিফোর গেমিং কোম্পানি লিমিটেড ও টি-টোয়েন্টিফোর ল ফার্ম লিমিটেডের ব্যাংক হিসাবে অর্থ লেনদেন ও স্থানান্তর করতে পারবেন না।
ব্যাংক হিসাব জব্দ হওয়া অন্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মো. আবু কাওসার, স্ত্রী পারভীন লুনা, মেয়ে নুজহাত নাদিয়া নীলা এবং তাদের প্রতিষ্ঠান ফাইন পাওয়ার সলিউশন লিমিটেড। কে এম মাসুদুর রহমান, তার স্ত্রী লুতফুর নাহার লুনা, বাবা আবুল খায়ের খান, মা রাজিয়া খান এবং তাদের প্রতিষ্ঠান সেবা গ্রিন লাইন লিমিটেড। যুবলীগের বহিষ্কৃত দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান আনিস, তার স্ত্রী সুমি রহমান, তার প্রতিষ্ঠান মা ফিলিং স্টেশন ও আরেফিন এন্টারপ্রাইজ। গ্রেপ্তার কাউন্সিলর পাগলা মিজান ও তারেকুজ্জামান রাজিব এবং তাদের পরিবার।
সিআইসি থেকে এর আগে ইসমাইল হোসেন চৌধুরী স¤্রাট, নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি, সেলিম প্রধান, জি কে শামীম, খালেদসহ বেশ কয়েকজন ও তাদের পরিবারের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়।

advertisement