advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এমপি রতনের স্ত্রী স্কুল থেকে সাময়িক বরখাস্ত

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ৯ নভেম্বর ২০১৯ ০০:১১
advertisement

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা তানভী ঝুমুর। সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা) আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের দ্বিতীয় স্ত্রী। এই প্রভাবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত না করে ১০ মাস ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। এই দীর্ঘ সময়ে মাত্র একদিন ‘পদধূলি’ দিয়েছিলেন বিদ্যালয়ে। এদিকে বিদ্যালয়ে উপস্থিত না থাকলেও বেতন ঠিকই তুলে নিচ্ছিলেন এ শিক্ষিকা। অবশেষে শিক্ষিকা ঝুমুরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ঝুমুরকে সাসপেন্ড করে প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।

জানা যায়, ঝুমুর প্রথমে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় শিক্ষকতা

করলেও ডেপুটেশনে এসে বর্তমানে সদর উপজেলার তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকতা করছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, গত ১০ মাসে মাত্র একদিন বিদ্যালয়ে এসে বাকি দিনগুলোতে অনুপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া তার সঙ্গে কর্তৃপক্ষ যোগাযোগের চেষ্টা করলেও ব্যর্থ হয়।

এ ব্যাপারে তেঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফেরদৌস আরা ইয়াসমিন বলেন, ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি তিনি শেষ বিদ্যালয়ে আসেন। এর পর থেকে তিনি আর বিদ্যালয়ে আসেননি। কোথায় আছেন তিনি, আমরা জানি না এবং ফোন দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেন না।

এ ব্যাপারে তানভী ঝুমুরের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে তার স্বামী সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন দাবি করেন, তার স্ত্রী মাতৃত্বকালীন ছুটিতে রয়েছেন। এ ব্যাপারে তার আবেদন প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে দেওয়া আছে।

তবে এমপির এ তথ্যের সঙ্গে মিল পাওয়া যায়নি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জিল্লুর রহমানের বক্তব্যে। তিনি জানান, বিনাকারণে বিদ্যালয়ে দীর্ঘ সময় অনুপস্থিত থাকায় শিক্ষক তানভী ঝুমুকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

advertisement