advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যে পথে বাংলাদেশে ঢুকবে ‘বুলবুল’

নিজস্ব প্রতিবেদক
৯ নভেম্বর ২০১৯ ১৯:৫২ | আপডেট: ৯ নভেম্বর ২০১৯ ২৩:৪৮
ছবি : আমাদের সময়
advertisement

উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ উত্তর-উত্তর পূর্ব দিকে ধেয়ে আসছে। এটি আরও উত্তর অথবা উত্তর পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ শনিবার মধ্যরাত নাগাদ পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল (সুন্দরবনের নিকট দিয়ে) অতিক্রম করতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে।

আজ রাত ৮টা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে যেকোনো সময় এটি তীরে আঘাত হানবে বলবে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আজ বিকেল সোয়া ৫টায় আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘ভারত ও বাংলাদেশের সুন্দরবন সীমানা দিয়ে দুই দেশে প্রবেশ করবে বুলবুল। বর্তমানে এটি মোংলা বন্দর থেকে ২৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে রয়েছে। এর তীরের দিকে এগিয়ে আসার গতিবেগ ঘণ্টায় ১৫ কিলোমিটার এবং বাতাসের গতিবেগ ৮৫ থেকে ১০০ কিলোমিটার। মধ্যরাত নাগাদ এটি বাংলাদেশ সমুদ্র তীরবর্তী এলাকায় আঘাত হানবে। দুই দেশের সুন্দরবন সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করে এটি ধীরে ধীরে দুর্বল হবে।’

বর্তমানে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়ে বুলবুল আরও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়েছে। এর প্রভাবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসহ ৯ উপকূলীয় জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখানো হচ্ছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই সতর্কতা জারি থাকবে। আজ সন্ধ্যার মধ্যে এটি সুন্দরবনের পাশ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

১০ নম্বর সতর্কতার আওতায় থাকা জেলাগুলো হচ্ছে, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো।

৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেতের আওতায় রয়েছে চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো। কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

advertisement