advertisement
International Standard University
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা তদন্তের নির্দেশ

১৩ নভেম্বর ২০১৯ ০১:১৮
আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৯ ০১:১৮
advertisement

চলতি বছর ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা উদ্ঘাটন ও দায়ীদের চিহ্নিত করতে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ডেঙ্গুতে এ পর্যন্ত ১১২ জন মৃত্যুর তথ্য উত্থাপন করলে গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন। এ তদন্ত পরিচালনার জন্য ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব পদ মর্যাদার নিচে নয় এমন একজনকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।


ওই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হাইকোর্ট বলেছেন, তদন্ত কমিটি বিশেষজ্ঞ মতামতের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগ, আইসিডিডিআরবি, গণস্বাস্থ্য বিভাগ, প্লান প্রটেকশন উইংয়ের সাহায্য-সহযোগিতা নিতে পারবেন। এর বাইরেও যাদের সহযোগিতা দরকার তাদের সহযোগিতাও কমিটি নিতে পারবে।
আদালতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তৌফিক ইনাম টিপু। রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার কাজী মাঈনুল হাসান। এ বিষয়ে ব্যারিস্টার তৌফিক ইনাম টিপু বলেন, গত মে মাসে ডেঙ্গু বিষয়ে হাইকোর্ট একটা স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় মামলাটি এসেছিল। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কী কাজ করা হয়েছে সে বিষয়ে ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করেছি।
তিনি বলেন, শুনানিকালে সরকারি হিসেবে ১১২ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে তথ্য উপস্থাপন করা হয়। এর পেছনে নিশ্চিয়ই কোনো অবহেলা ছিল। আদালত কোনো ব্যর্থতা বা গাফিলতি আছে কিনা সেটি তদন্ত করতে ঢাকা জেলা ও দায়রা জজের নেতৃত্বে একটা তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। এ আদেশের আগে রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ বছর ডেঙ্গুতে মৃত্যুবরণকারীদের একটি তালিকা আদালতে দাখিল করেন। যেখানে সরকারি হিসাবে ১১২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে জানানো হয়।
এর আগে গত ৮ নভেম্বর চলতি বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে কতজন মারা গেছেন তার সংখ্যা জানাতে বলেন হাইকোর্ট। রাষ্ট্রপক্ষকে ১১ নভেম্বরের মধ্যে এ তথ্য জানাতে বলা হয়। সে অনুযায়ী গতকাল রাষ্ট্রপক্ষ ওই মৃতদের তালিকা তুলে ধরলে তদন্তের আদেশ দেন। ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেলে গত ৪ জুলাই হাইকোর্ট স্বতঃপ্রণোদিত এক আদেশে ঢাকা সিটিতে ডেঙ্গু-চিকুনগুনিয়াসহ এডিস মশা নির্মূল ও ধ্বংসে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়ে রুল জারি করেন। ওই আদেশের ধারাবাহিকতায় গতকাল আবারও নতুন আদেশ আসে।

advertisement