advertisement
International Standard University
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

২২৫ মিনিট লড়াই করেও পারলেন না মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক,ইন্দোর থেকে
১৬ নভেম্বর ২০১৯ ২০:৪৯ | আপডেট: ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ০১:১৪
ছবি : সংগৃহীত
advertisement

ভারতের বিরুদ্ধে ইন্দোর টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে মুশফিক যখন আউট হয়ে মাথা নিচু করে ড্রেসিং রুমের দিকে যাচ্ছিলেন দেখে বোঝা যাচ্ছিল যেন রাজ্যের হতাশা ঘিরে আছে তাকে। তিনি রবীচন্দ্রণ অশ্বিনের বলে ক্যাচ তুলে দিলে বাংলাদেশের নবম উইকেটের পতন ঘটে। তার আউটের মাধ্যমে নিভু নিভু করে জ্বলতে থাকা হারের ব্যবধান কমানোর স্বপ্নটাও মিইয়ে যায়। তার আউট হওয়ার আট বল পরেই পতন ঘটে সর্বশেষ উইকেটের। বাংলাদেশও হারে ইনিংস ও ১৩০ রানের ব্যবধানে।

নিঃসন্দেহে মুশফিইক বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান। তার ব্যাটের দিক তাকিয়ে থাকে ১৬ কোটি বাঙালি। দিল্লিতে প্রথম টি-টোয়েন্টি জয়ের নায়কও এই মুশফিক। সবার প্রত্যাশা অনুযায়ী না খেলতে পারলেও ভারতের বিপক্ষে ইন্দোরে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীও তিনি। প্রথম ইনিংসে ৪৩ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে তার ব্যাট থেকে আসে লড়াকু ৬৪ রান।

বাংলাদেশ মূলত ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় প্রথম ইনিংসে মাত্র ১৫০ রান করার ফলে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভারত ৪৯৩ রান করে ইনিংস ঘোষণা করলে বাংলাদেশের সামনে লিড দাঁড়ায় ৩৪৩ রানের। আজ তৃতীয় দিন সকালে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। মুমিনুল হক আউট হওয়ার পর ১২ ওভারের সময় ক্রিজে আসেন মুশফিক। তিনি আউট হয়ে যখন ফিরছিলেন তখন চলে ৬৭ ওভার।

মাঝের ৫৫ ওভার ২২৫ মিনিট ধরে একাই লড়াই করেছেন তিনি। মুশফিকের ব্যাট কথা না বললে বাংলাদেশের হার আরও আগেই নিশ্চিত হয়ে যেত। মাঝে লিটন দাস ও মিরাজের সঙ্গে দুটি জুটি গড়েছিলেন তিনি। তবে ক্রিজে থিতু হয়েই আবার তাকে রেখে দুজনই ফিরে যান। এরপর মুশফিকও আর বেশিক্ষণ থাকতে পারেনি। ফলে বাংলাদেশেরও হারের মুহূর্তও দ্রুত ঘনিয়ে আসে। প্রথম টেস্টে টাইগারদের হয়ে দুই ইনিংস মিলিয়ে সর্বোচ্চ ১০৭ রান আসে মুশফিকের ব্যাট থেকেই।

advertisement