advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পরিবহন শ্রমিকদের মর্জি বোঝার চেষ্টায় সরকার

আইন কার্যকরে আরও সময় লাগবে

তাওহীদুল ইসলাম
১৭ নভেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৭ নভেম্বর ২০১৯ ০৮:৪১
নতুন সড়ক আইনের কারণে গতকাল হঠাৎ করেই বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়তে হয় পথে বের হওয়া মানুষজনকে। বগুড়া সড়ক থেকে তোলা -ফোকাস বাংলা
advertisement

নতুন সড়ক আইন বাস্তবায়নে দুই দফায় সময় বাড়িয়েছিল সরকার। সে হিসাবে চলতি সপ্তাহ থেকে আইনটি কার্যকরের কথা। তবে তা এখনই হচ্ছে না। বরং আরও সময় নিচ্ছে সরকার। এদিকে আইন প্রয়োগে সরকারের গতি যত ধীর, পরিবহন শ্রমিকদের তৎপরতা তত বেশি। ইতোমধ্যে এ আইনের প্রতিবাদে বগুড়া, কুষ্টিয়াসহ কিছু এলাকায় অঘোষিত ধর্মঘট ডেকে যান চলাচল বন্ধ করেছেন তারা। কর্তৃপক্ষ এখন উল্টো তাদের সমঝে চলার নীতিই নিয়েছে। আইনটি এখনই কার্যকর না করে আপাতত প্রস্তুতি বৃদ্ধি ও পরিবহন শ্রমিকদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে।

সড়ক আইনের শাস্তি কমানোর দাবিতে এরই মধ্যে বগুড়া, কুষ্টিয়াসহ দেশের কিছু অঞ্চলে সড়ক-মহাসড়কে অঘোষিত কর্মবিরতি পালন করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। নতুন আইনে জেল দেওয়া হচ্ছে, ফিটনেসবিহীন গাড়ি ধরা পড়লে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হচ্ছেÑ এসব তথ্য রটিয়ে গতকাল শনিবার বগুড়ার ছয় রুটে বাস চলাচল

বন্ধ করে দেন চালক-শ্রমিকরা। সারাদিন ভোগান্তির পর জরিমানা করা হবে না পুলিশের এ আশ^াসে সন্ধ্যায় বাস চলাচল শুরু হয়।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বর্তমানে পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দামে ঊর্ধ্বগতি। এর মধ্যে পরিবহন ধর্মঘট হলে সবজিসহ অন্যান্য পণ্যের দাম আরও বাড়তে পারে। পরিবহন ধর্মঘটের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টরা সরকারকে জিম্মি করতে চাইছে বলে মনে করা হচ্ছে। এমনটি হলে জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হতে পারেÑ বিষয়টি মাথায় রেখেই আইন কার্যকরের কথা ভাবছে কর্তৃপক্ষ।

তবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান ড. কামরুল আহসান বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালত কার্যকর করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তফসিলভুক্ত হওয়ার বিষয় রয়েছে। সেটি এখনো প্রজ্ঞাপন হয়নি। তবে দুয়েক দিনের মধ্যে হয়ে যাবে।

আইন অনুযায়ী, সড়ক পরিবহন আইন ভঙ্গে বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত জেল-জরিমানা করবে। পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামলা করতে পারবেন। নতুন আইনে মামলা দিতে বাধা নেই পুলিশের। কিন্তু ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে আইন তফশিলভুক্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে, তা এখনো হয়নি।

সড়ক পরিবহন আইনটি ১ নভেম্বর কার্যকর হলেও গাড়ির কাগজ হালনাগাদের সুযোগ দিতে আইন প্রয়োগে দুই সপ্তাহ ছাড় দেওয়া হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ঘোষণা অনুযায়ী, আজ রবিবার থেকে আইনটি প্রয়োগ হওয়ার কথা। ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামও বলেছেন, আইন সম্পর্কে জনসচেতনতা বাড়াতে আরও কিছু সময় লাগবে।

নতুন আইনে লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান থাকলেও প্রথমবার অপরাধের ক্ষেত্রে পাঁচ হাজার এবং পরে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। রেজিস্ট্রেশন ছাড়া গাড়ি চালালে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। তবে পুলিশের মামলার ফরম অনুযায়ী এ ধারায় প্রথমবার অপরাধের ক্ষেত্রে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে। গাড়ির ফিটনেস না থাকলে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করার কথা। অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালালে গুনতে হবে আড়াই হাজার টাকা জরিমানা।

advertisement