advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আরাফাত সানিকে পিটিয়ে ৫ বছর নিষিদ্ধ শাহাদাত

স্পোর্টস ডেস্ক
১৯ নভেম্বর ২০১৯ ১৬:১২ | আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ১৯:৪৫
৫ বছর নিষিদ্ধ হলেন পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব
advertisement

সতীর্থ আরাফাত সানি জুনিয়রকে পেটানোর দায়ে ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন রাজীব যে বড় শাস্তি পাবেন, তা অনুমেয় ছিল। ‘লেভেল-৪’ আইনের অপরাধে তাকে ৫ বছর নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিবিসি)। জরিমানা করা হয়েছে ৩ লাখ টাকা।

এই শাস্তির বিরুদ্ধে ২৬ নভেম্বরের মধ্যে আপিল করতে পারবেন শাহাদাত। শাস্তির ৫ বছরে আবার দুই বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞার বিধান রয়েছে আইনে। ভাগ্য সহায় হলে সেটি পেতে পারেন জাতীয় দলে এক সময়কার ‘অটোচয়েজ’ শাহাদাত।

আজ মঙ্গলবার শাহাদাতের শাস্তির বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করেছে বিসিবি। ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদও বিষয়টির নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেন, ‘শাহাদাত আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছিল। মাঠের মধ্যে সতীর্থদের গায়ে হাত দেওয়া গুরুতর অপরাধ। কমিটির সবাই তার এই শাস্তির ব্যাপারে একমত ছিল।’

গত রোববার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ঢাকা বিভাগ ও খুলনা বিভাগের মধ্যকার খেলায় নিজ দলের সতীর্থ আরাফাত সানিকে চড়-থাপ্পড়, লাথি দেন শাহাদাত।

ঘটনাটি এমন- ঢাকার পেসার শাহাদাত বল করছিলেন। নিজের স্পেলে এসে আরাফাত সানি জুনিয়রকে বল ‘শাইন’ করে দিতে বলেন। তবে অনীহা প্রকাশ করেন সানি জুনিয়র। এতে ক্ষেপে যান শাহাদাত। বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে সানিকে চড়-থাপ্পড়, লাথি মরেন তিনি। এ সময় সতীর্থরা এসে সানিকে বাঁচান। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে আম্পায়ারের আবেদনে শাহাদাতকে মাঠ থেকে বের করে দেন ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদ। ম্যাচটির জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন তিনি। পরে ম্যাচ মাঠে গড়ালেও ঢাকা খেলেছে ১০ জন নিয়ে।

বিষয়টি নিয়ে শাহাদাতের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বল শাইন করা নিয়ে সানির সঙ্গে তার বাকবিতণ্ডা হয়। সানিও তার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন। তিনি খারাপ ভাষায় উত্তর দেওয়ায় ধৈর্য হারিয়ে ফেলেন শাহাদাত। পরে তাকে চড়-থাপ্পড় দেন।

এর আগে শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে শিরোনাম হয়েছিলেন শাহাদাত হোসেন। শাস্তিও পেয়েছিলেন কয়েকবার। তা ছাড়া পরিচারিকাকে মারধরের অভিযোগে হাজতবাসও করেছিলেন জাতীয় দলের এই পেসার।

advertisement