advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

লবণ নিয়ে গুজব, সারা দেশে লঙ্কাকাণ্ড

অনলাইন ডেস্ক
১৯ নভেম্বর ২০১৯ ২০:৫৪ | আপডেট: ২০ নভেম্বর ২০১৯ ০১:২৬
লবণ কিনতে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। ছবিটি বগুড়ার শাহাজাহানপুর দুবলাগাড়ি হাট থেকে তোলা
advertisement

দেশে লবণের কোনো সংকট না থাকলেও ছড়ানো হয়েছে গুজব। সংকটের ‘ভুয়া’ খবরে আতঙ্কিত হয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় লবণ কিনতে দোকানে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। পরিস্থিতির সুযোগ কাজে লাগিয়ে কয়েক গুণ দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

গুজব ছড়ানো ও বাড়তি দামে লবণ বিক্রির অপরাধে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে বেশ কয়েকজনকে। ঢাকাসহ সারা দেশে চলছে অভিযান। আমাদের সময়ের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো।

হবিগঞ্জ (সিলেট)

হবিগঞ্জ শহরসহ আশপাশের এলাকায় লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব রটানোর অভিযোগে চার ব্যবসায়ীকে আটক করে দণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত রানা এই দণ্ড দেন।

জানা গেছে, সোমবার সন্ধ্যার পর থেকেই হবিগঞ্জ শহরসহ আশপাশের এলাকায় লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব রটেছিল। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে শহরের চৌধুরী বাজার এলাকায় চার ব্যবসায়ীকে আটক করে দণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এদিন শহরের চৌধুরী বাজার এলাকায় গিয়ে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত লবণ মজুদ রাখার উদ্দেশ্যে ক্রয় করে। এ সময় এনএসআই সদস্যরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে সেখানে অবস্থান নেয়। পরে ছয়জনকে আটক করে প্রায় ৫০ কেজি লবণ জব্দ করা হয়।

কেন্দুয়া (নেত্রকোণা)

নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে লবণ বিক্রির দায়ে চার ব্যবসায়ীকে এক লাখ ৬০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কেন্দুয়া সদর বাজার এবং রামপুর ও বেখৈরহাটি বাজারে এ অভিযান চলে।

অভিযানে কেন্দুয়া বাজারের বানিজ্যালয়ের লবণ ডিলার বাচ্চু মিয়াকে ৭০ হাজার, রামপুর বাজারের মুজাহিদ স্টোরের মালিককে ২০ হাজার, বেখৈরহাটি বাজারের ব্যবসায়ী শাহীন মিয়াকে ৫০ হাজার এবং একই বাজারের ব্যবসায়ী আরশাদ আলীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বরগুনা

কৃত্রিম সংকট তৈরি করে প্রতি কেজি লবণ ৮০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। লবণের লেভেলের দামের সঙ্গে কোনো মিল নেই। আজ বিকেলে লবণের দাম বৃদ্ধির খবর শহর থেকে গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। সরেজমিনে দেখা দেছে, মোটা লবণ ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা, চিকন লবণ ৫০ টাকা থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

দাউদকান্দি (কুমিল্লা)

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার বাজারগুলোতে আজ বিকেল সাড়ে ৩টার পর প্রতি কেজি লবণ ৩৫ টাকার পরিবর্তে ১৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। জানা যায়, উপজেলার পৌর সদর দাউদকান্দি বাজার, গৌরীপুর, ইলিয়টগঞ্জ, গোয়ালমারী, শহীদনগর, রায়পুর, সুন্দলপুরসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাজারগুলোতে বিকেলে এক কেজি ওজনের ৩৫ টাকার লবণ প্রথমে ৫০ টাকা করে বিক্রি হয়। ক্রেতা বাড়তে থাকায় ১০০ টাকা ও পরে ১৫০টাকা করে বিক্রি করে।

খবর পেয়ে দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল ইসলাম খান বাজারে এসে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পান। এ সময় তিনি ক্রেতাদের দেওয়া তথ্য থেকে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করেন।

কুড়িগ্রাম

লবণের সংকট গুজবে দ্বিগুণেরও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে লবণ। আজ বিকেলে জেলা সদরের হাটির পাড় এলাকার আবুল হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে দ্বিগুণ দামে এবং কাঁঠালবাড়ী হাটে এক বৃদ্ধকে একসঙ্গে ৬ কেজি ৩৫ টাকা দামের লবণ ৭৫ টাকায় কিনতে দেখা গেছে। এ ছাড়া সদরের মিনাবাজারসহ ছোট-বড় অনেক মুদি দোকানে ১০০ টাকা দরে ৫ থেকে ১০ কেজি করে লবণ বিক্রি হচ্ছে।

মানিকগঞ্জ

লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে মানিকগঞ্জের বিভিন্ন বাজারে। আজ বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে শহরের দুধবাজার এলাকায় নির্ধারিত দামের চেয়ে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি হচ্ছে বলে ক্রেতাদের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস জানান, লবণের দাম বৃদ্ধির বিষয়টি সঠিক নয়। এটি সম্পূর্ণ গুজব। এ বিষয়ে মাইকিং করে জনসাধারণদের সচেতন করা হচ্ছে।

সখীপুর (টাঙ্গাইল)

টাঙ্গাইলের সখীপুরে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি করায় শাবাস খান নামের এক মুদী দোকানদারকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ সন্ধ্যায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়শা জান্নাত তাহেরা ভোক্তাধিকার আইনে এ জরিমানা করেন।

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

দাম বাড়ার গুজবে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন এলাকায় লবণ কিনতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। প্রতি কেজি লবণের দাম ১০০ থেকে ১২০ টাকা হয়েছে এমন গুজব ছড়াচ্ছে একটি অসাধু চক্র। তবে লবণের দাম বাড়ার তথ্যটি গুজব বলে জানিয়েছেন টাঙ্গাইলের প্রশাসন।

জানা যায়, প্রতি কেজি লবণের দাম ১০০ থেকে ১২০ টাকা হচ্ছে এমন গুজবে বিভ্রান্ত হয়ে বেশি মুনাফার লোভে বিভিন্ন বাজারের অসাধু ব্যবসায়ীরা লবণ বিক্রি করা বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে সাধারণ মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছেন।

লবনের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে আজ সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত টাঙ্গাইল শহরের ছয়আনী ও পার্ক বাজার, কালিহাতীর এলেঙ্গা এবং ভূঞাপুসহ বিভিন্নস্থানে বাজারে অভিযান পরিচালনা করছেন টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন।  এদিকে উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার কালিহাতীর এলেঙ্গা বাসস্ট্যান্ড বাজারে জনগণকে সচেতন করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়েছে।

দৌলতখান (ভোলা)

ভোলার দৌলতখান উপজেলায় নির্ধারিত মূল্যের বেশি দামে লবণ বিক্রির দায়ে ৬ ব্যবসায়ীকে ৫২ হাজার টাকার অর্থদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ বিকেল ৫টা থেকে সন্ধা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত দৌলতখান বাজার এবং মেয়ারহাট ও নুরু মেয়ারহাট বাজারে এ অভিযান চলে।

অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিতেন্দ্র কুমার নাথ। এ সময় অভিযানকে সাহায্য করেন দৌলতখান থানার ওসি (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম।

advertisement