advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন আসিফ

আদালত প্রতিবেদক
২০ নভেম্বর ২০১৯ ১৩:০১ | আপডেট: ২০ নভেম্বর ২০১৯ ১৫:২৯
কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর
advertisement

রাজধানীর তেজগাঁওস্থ নিজ কার্যালয়ে চার বোতল ম্যাক্সিক্যান টাকিলা মদ রাখার মামলায় কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবরকে জামিন দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমান ৫ হাজার টাকা বন্ডে এ জামিন মঞ্জুর করেন।

গত ১৩ নভেম্বর মামলাটিতে পলাতক দেখিয়ে চার্জশিট দাখিল করায় এ সংগীতশিল্পী এদিন ঢাকা সিএমএম আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মধ্যেমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন।

জামিনের শুনানিতে আইনজীবীরা বলেন, মদ পানের তার (আসিফ) লাইসেন্স আছে। লাইসেন্স অনুযায়ী তিনি সোয়া ৫ লিটার বিদেশি মদ রাখতে পারবেন। আর মামলায় চার বোতলে চার লিটার মদ পাওয়ার কথা বলা হয়েছে। মেডিকেল গ্রাউন্ডে তিনি এ লাইসেন্স পেয়েছেন। তাই এ মামলা হওয়ার কোনো কারণই ছিল না। শুধুমাত্র হয়রানি করার জন্য এ মামলা হয়েছে।

এ সময় জামিনের বিরোধীতা করে সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান বলেন, মেডিকেল গ্রাউন্ডে তিনি (আসিফ) লাইসেন্স পেয়ে থাকলে সে কাগজপত্র দেখান। তখন আদালতে উপস্থিত আসিফ বলেন, ‘মেডিকেল গ্রাউন্ড কিছু নয়। মদ পানের লাইসেন্স সরকার আমাকে দিয়েছে। ১০ বছর আগে এ লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। সোয়া ৫ লিটার বিদেশি মদ রাখার অনুমতি লাইসেন্সে রয়েছে।’ উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক ৫ হাজার টাকা বন্ডে জামিন মঞ্জুর করেন।

২০১৮ সালের ৫ জুন দিবাগত রাতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের একটি মামলায় আসিফকে তার রাজধানীর তেজগাঁওস্থ নিজ কার্যালয় থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই সময় অফিস কক্ষে চার বোতল ম্যাক্সিক্যান টাকিলা মদ পাওয়া যায়। মদ পাওয়ার পর তা পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরে পাঠানো হয়।

পরবর্তী সময়ে ওই বছরের ২৩ জুলাই তেজগাঁও থানায় ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬ (১) এর ২৪(ক) ধারায় মামলা করেন সিআইডি পুলিশের সাইবার তদন্ত শাখার উপ-পরিদর্শক প্রশান্ত কুমার সিকদার। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের উপ-পরিদর্শক জামাল হোসেন আদালতে গত ১৩ নভেম্বর চার্জশিট দাখিল করেন।

উল্লেখ্য, গীতিকার, সুরকার ও গায়ক শফিক তুহিন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় ২০১৮ সালের ৫ জুন আসিফ আকবর গ্রেপ্তার হওয়ার পর ওইদিনই তাকে কারাগারে পাঠায় আদালত। ৫ দিন কারাভোগের পর ওই বছর ১১ জুন তিনি জামিনে মুক্তি পান।

advertisement