advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ধর্ষকদের রাস্তায় ফেলে পিটিয়ে মারা উচিত : জয়া বচ্চন

অনলাইন ডেস্ক
২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৭:১১ | আপডেট: ২ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৭:২৩
রাজ্যসভায় বক্তব্য রাখছেন জয়া বচ্চন। ছবি : টাইমস অব ইন্ডিয়া
advertisement

সিনেমা থেকে রাজনীতি দুই জায়গায়ই সমানভাবে এগিয়ে আছেন অমিতাভ বচ্চনপত্নী জয়া বচ্চন। বর্তমানে তিনি ভারতের একজন পার্লামেন্ট সদস্য। আজ সোমবার রাজ্যসভায় নিজের বক্তব্যে তিনি ধর্ষকদের রাস্তায় ফেলে পিটিয়ে মারা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন।

সমাজবাদী পার্টির এই নেত্রী হায়দরাবাদে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন রাজ্যসভায়। তিনি বলেন, ‘সময় এসেছে, ধর্ষকদের প্রকাশ্যে ভর্ৎসনা করা উচিত। তাদের রাস্তায় ফেলে পিটিয়ে মারা উচিত।’ এ সময় সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন জয়া।

গত বৃহস্পতিবার হায়দরাবাদের শামশাবাদ টোল প্লাজা এলাকায় এক তরুণী পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ করে চার যুবক। ধর্ষণের পর ওই তরুণীকে হত্যা করে মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে। রাজ্যসভায় ওই ঘটনার বর্ণনা করে জয় বচ্চন বলেন, ‘ধর্ষণের ঘটনায় বিচার দিতে সরকার কী করছে তা জানাতে হবে। হায়দরাবাদের যে ঘটনায় শোরগোল পড়েছে তার আগের দিনও একই ধরনের ঘটনা ঘটেছে।’

ছক কষে প্রথমে ‘গণধর্ষণ’, পরে তরুণীকে পুড়িয়েও মারল ৪ যুবক

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, হায়দরাবাদের ওই ঘটনা নিয়ে জয়ার বক্তব্যের পর সংসদে তোলপাড় শুরু হয়। নারীদের বিরুদ্ধে অপরাধে আরও কড়া শাস্তির সুপারিশ করেন সাংসদরা।

জয়া বচ্চনের পাশাপাশি ধর্ষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার হন এআইএডিএমকে সাংসদ বিজিলা সাত্যনাথ। সংসদে দাঁড়িয়ে কেঁদে ফেলেন তিনি। বলেন, ‘এই দেশে নারী ও শিশুরা নিরাপদ নয়। হায়দরাবাদে যে ৪ জন ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত তাদের ৩১ ডিসেম্বরের আগেই ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া উচিৎ। দেরি করলে বিচার পাওয়ার আশা থাকে না।’

সাংসদদের এমন উত্তাপ পরিস্থিতিকে সরকারদলীয় সাংসদ রাজনাথ সিং বলেন, ‘এই ধরনের ঘৃণ্য অপরাধ রুখতে সরকার সব ধরনের প্রস্তাব গ্রহণ করতে তৈরি। ধর্ষণ রুখতে কড়া আইন আনতেও তৈরি সরকার।’

advertisement