advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘১৩ বছরে তিন গুণ বেড়েছে জিনিসপত্রের দাম’

নিজস্ব প্রতিবেদক
৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৪:০৩ | আপডেট: ৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৫:০৬
পুরোনো ছবি
advertisement

রান্নার জন্য ব্যবহৃত প্রতিটি জিনিসের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, গত ১৩ বছরে জিনিসপত্রের মূল্য গড়ে বেড়েছে দিগুণেরও বেশি। অনেক ক্ষেত্রে ৩ গুণও।

আজ মঙ্গলবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘পরিস্থিতি কতটা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে, তা গত কয়েক দিনে প্রকাশিত কিছু সংবাদ শিরোনামই পরিষ্কার করে।’

পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে তিনি বলেন, ‘অবৈধ সরকার পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে জনগণকে পেঁয়াজ খেতে নিষেধ করছে। তাহলে চালের মূল্য কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা, আটার মূল্য ৫ থেকে ১০ টাকা বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে তারা এখন কি বলবেন! ভাত খাওয়া বন্ধ করে দিতে? রুটি খাওয়া বন্ধ করে দিতে? ভোজ্যতেলের দাম বেড়েছে, তেল খাওয়াও কি বন্ধ করে দিতে হবে?’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এখন পেঁয়াজের কেজি ২০০ থেকে ২৩০ টাকা। গত এক বছরে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪৩৭ শতাংশ।  এমনি পেঁয়াজের পাতার দামও ১ শত টাকা। বাজারে এমন কোনো সবজি নেই যার দাম ৮০ থেকে ১০০ শত টাকার কম।’

২০০৬ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে নিত্য প্রয়োজনীয় কয়েকটি পণ্যেও দামের চিত্র তুলে ধরে ধরেন মির্জা ফখরুল। 

সেই সময়ের জিনিসপত্রের দামের সঙ্গে বর্তমান জিনিসপত্রের দাম তুলনা করে তিনি বলেন, ‘দাম বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় গত ১৩ বছরে জিনিসপত্রের মূল্য গড়ে বেড়েছে দিগুণেরও বেশি।  অনেক ক্ষেত্রে ৩ গুণও।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র, আব্দুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ।

advertisement