advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এসএ গেমসে অবশেষে জিতলেন জামালরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক
৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ২০:৪৫ | আপডেট: ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:৩০
গোলদাতা মাহাবুবুর রহমান সুফিল
advertisement

এসএ গেমসে অবশেষে জয়ের মুখ দেখল বাংলাদেশ অলিম্পিক ফুটবল দল। গতকাল বৃহস্পতিবার নেপালের দশরথ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে ১-০ গোলের জয় পায় জেমি ডের দল। এই জয়ে ফাইনালে স্বপ্ন বেঁচে রইল জামালদের!

ভুটানের বিপক্ষে ১-০ গোলের হার দিয়ে এবারের মিশন শুরু হয় বাংলাদেশের। প্রথম ম্যাচেই স্বর্ণ জয়ের স্বপ্ন অনেকটা ফিকে হয়ে যায়। অপেক্ষাকৃত সহজ প্রতিপক্ষের কাছে পয়েন্ট খুইয়ে ফাইনালে ওঠার পথ বন্ধুর করে তোলে লাল-সবুজের দল।

প্রথম ম্যাচের ব্যর্থতা ঢাকতে পারেনি দ্বিতীয় ম্যাচেও। মালদ্বীপকে হারানোর মিশনে নেমে বাজে খেলা উপহার দেয় জামালরা। ভাগ্যের সহায়তায় শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ড্র করে মান বাঁচানো ১ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে দল। আত্মঘাতী গোল থেকে ড্র করে বাংলাদেশ। মালদ্বীপের আক্রমণ ঠেকাতেই খেলার নির্ধারিত সময় পার করে দেয় জামাল-সুফিলরা।

গত দুই ম্যাচের হিসাবে আজ ভালোই খেলেছে বাংলাদেশ। শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচের ১১ মিনিটেই মাহাবুবুর রহমানের সুফিলের গোলে এগিয়ে যায় লাল-সবুজরা (১-০)। গোল খেয়ে মরিয়া শ্রীলংকা মুহুর্মুহু আক্রমণ চালাতে থাকে। প্রথমার্ধে বেশ কিছু সুযোগও তৈরি করে। রাফি, বাদশা, ইয়াসিনদের জমাট রক্ষণে লংকানদের সেই সব আক্রমণ প্রতিহত হয়। ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ তৈরি করে জেমির দল। স্ট্রাইকারদের ব্যর্থতায় ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিশ্রামে যায় দল।

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণে রেশ ধরে রাখে দুদল। ঘটে আক্রমণ, চলে পাল্টা আক্রমণের ঘটনাও। কিন্তু সুফিলে দেওয়া গোলই শেষ পর্যন্ত দুদলের জয় পরাজয়ে পার্থক্য গড়ে দেয়। টানা দুই ম্যাচ ড্রয়ের পর তৃতীয় ম্যাচে এসে হারের মুখ দেখ শ্রীলংকা। উল্টো অবস্থা বাংলাদেশের। এক হার, এক ড্রয়ের পর তিন নম্বর ম্যাচে এসে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জামাল বাহিনী।

জিতেছে ভুটানও

বাংলাদেশের জয়ের দিনে জয় পেয়েছে টুর্নামেন্টের আন্ডারডগ ভুটানও। মালদ্বীপকে ২-১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে চেনচোরা। এই জয়ে নেপালকে পেছনে ফেলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে ভুটান। ৩ ম্যাচে ২ জয় ও ১ হারে দলটির সংগ্রহ এখন ৬ পয়েন্ট। এরপরই স্বাগতিক নেপালের অবস্থান। ২ ম্যাচ খেলে ৪ পয়েন্ট ঘরে তুলেছে তারা। ১ জয় ও ১ ড্র দলটির। তিন নম্বরে থাকা বাংলাদেশের সংগ্রহও ৪ পয়েন্ট। তবে নেপালের চেয়ে এক ম্যাচ বেশি খেলেছে তারা। ৩ ম্যাচে সমান ২ পয়েন্ট পাওয়া মালদ্বীপ চার নম্বরে এবং শ্রীলংকার অবস্থান পয়েন্ট টেবিলে সবার নিচে (পাঁচে)। এবারের আসরে হট ফেভারিট ভারত খেলছে না। আগেই নাম প্রত্যাহার পাকিস্তানও।

বাংলাদেশের সামনে ‘কঠিন সমিকরণ’

ফাইনালে যেতে কঠিন এক সমীকরণে মুখে এখন বাংলাদেশ। দলের বর্তমান অবস্থান বলছে ব্রোঞ্জের লড়াইয়ে আছে জামালরা। গ্রুপপর্বে এখনো এক ম্যাচ বাকি রয়েছে। ৮ ডিসেম্বর শেষ ম্যাচটি লাল-সবুজরা খেলবে স্বাগতিক এবং আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নেপালের বিপক্ষে। ফাইনালে যেতে হলে ওই ম্যাচে জিততেই হবে। ড্র করলে কিংবা হেরে গেলে আর কোনো সম্ভাবনা থাকবে না।

কথা এখানেই শেষ নয়। ৬ ডিসেম্বর নেপাল তাদের তৃতীয় ম্যাচ খেলতে নামবে। সেখানে তাদের প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ। ওই ম্যাচ নেপাল জিতে গেলে সরাসরি ৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে চলে যাবে। ভুটান ৩ ম্যাচে ইতিমধ্যে ৬ পয়েন্ট অর্জন করেছে। ভুটান ৭ ডিসেম্বর শ্রীলংকার বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচ খেলবে। ভুটান জিতে গেলে এবং নেপাল মালদ্বীপ হারালে তখন বাংলাদেশের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে! সমীকরণ যা দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশকে নেপালের বিপক্ষে জিতলেই চলবে না; ভুটান এবং নেপালের হারও কামনা করতে হবে।  

advertisement