advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বন্দুকধারী সৌদি সেনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৩:৪২
advertisement

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় নৌঘাঁটিতে হামলা চালানো বন্দুকধারী সৌদি আরবের নাগরিক। তিনি ওই ঘাঁটিতেই প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন। হামলার পর মোহাম্মদ সাইদ আল শামরানিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, সৌদি বাদশা সালমান বিন আবদুল আজিজ শোক জানিয়েছেন।

স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, শামরানি সৌদি বিমানবাহিনীর সদস্য। শুক্রবারের হামলায় তিনিসহ চারজন নিহত হন। আহত হন আরও ৮ জন।

হাওয়াইয়ের পার্ল হারবার সামরিক ঘাঁটিতে মার্কিন নৌবাহিনীর এক নাবিকের গুলিতে দুই বেসামরিক নিহত ও একজন আহত হওয়ার দুদিন পর পেনসাকোলা নৌঘাঁটিতে এ হামলার ঘটনা ঘটল।

স্থানীয় শেরিফের কার্যালয় নিশ্চিত করেছে, হামলায় বন্দুকধারী হ্যান্ডগান ব্যবহার করেছিলেন।

আলাবামা রাজ্যের সীমান্তবর্তী ফ্লোরিডার এই ঘাঁটি যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর প্রধান প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোর একটি। মার্কিন নৌবাহিনীর অ্যারোবেটিক ফ্লাইট ডেমোনেস্ট্রেশন স্কয়াড্রন ‘দ্য ব্লু অ্যাঞ্জেলস’-এর কার্যক্রমও এ ঘাঁটিতে।

এখানে ১৬ হাজারের বেশি সামরিক এবং ৭ হাজার ৪০০ বেসামরিক কর্মী নিয়োজিত আছেন। এদের মধ্যে ১৬ জন সৌদি রয়েছেন। অসমর্থিত সূত্র বলছে, এদের আটক করা হয়েছে।

ফ্লোরিডার গভর্নর রন ডেসান্টিস বলেছেন, ‘হামলাকারী যেহেতু বিদেশি নাগরিক, সৌদি বিমানবাহিনীর সদস্য এবং আমাদের এখানে প্রশিক্ষণে এসেছিলেন। সুতরাং অবশ্যই অনেক প্রশ্ন উঠবে।’

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানান, নৌঘাঁটিতে হামলার ঘটনার পর পরই সৌদি বাদশা সালমান তাকে ফোন করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। হামলাকারী ব্যক্তি কোনো অবস্থাতেই সৌদি জনগণের অনুভূতিকে ধারণ করে না বলেও ট্রাম্পকে আশ্বস্ত করেছেন তিনি।

advertisement