advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চাকরি দিতে না পারায় লেবাননে খুন বাংলাদেশি নারীকর্মী

বাবু সাহা,লেবানন
৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৩:৪৬ | আপডেট: ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৩:৪৬
রহিমা আক্তার
advertisement

ভালো কাজ দেবেন বলে বাংলাদেশি এক যুবককে লেবাননে নিয়ে যান নারীকর্মী রহিমা আক্তার (৪৬)। কিন্তু সেখানে নিয়ে যাওয়ার পরে তাকে কোনো কাজ দিতে পারেননি তিনি।  এতে ওই যুবক মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েন।  আর তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে রহিমাকে খুন করেন ওই যুবক।

গত ২৪ নভেম্বর লেবাননের আলাইয়ের আরাইয়া নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।  ওই যুবকের নাম রিমন ভূঁইয়া। এ ঘটনার পর ওই যুবককে গ্রেপ্তার করে লেবানন পুলিশ। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য দিয়েছেন তিনি।

জানা গেছে, আট মাস নারীকর্মী রহিমার মাধ্যমে লেবাননে আসেন রিমন। দুজনেরই বাড়ি নরসিংদীর শিবপুর উপজেলায় শরণখোলা গ্রামে। রহিমা তার কাজের পাশাপাশি ভিসার কাজ করতেন বলে জানা গেছে। সেই সুবাদে নিজ গ্রামের পূর্বপরিচিত রিমন নামে ওই যুবককে লেবাননে আনেন তিনি। কিন্তু সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর তাকে কোনো কাজ দিতে পারেননি রহিমা।

দীর্ঘদিন সেখানে থেকে কোনো কাজ না পাওয়ায় মানসিকভাবে একপ্রকার ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন রিমন। 

এদিকে, কাজ দেওয়ার কথা বলে একের পর এক টালবাহানা করতে থাকেন তিনি। এ নিয়ে গত ২৪ নভেম্বর দুজনের মধ্যে তুমুল ঝগড়া হয়। ঝগড়ার এক পর্যায়ে রহিমাকে গলাটিপে হত্যা করেন রিপন। পরে সেখান থেকে পালিয়ে যান তিনি। 

পরে লেবাননের স্থানীয় পুলিশ অভিযান চালিয়ে রিমনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর পুলিশকে এসব তথ্য দেন রিমন। বর্তমানে তিনি পুলিশ হেফাজতে আছেন।

নিহত রহিমা নরসিংদী শিবপুর উপজেলায় হরণখোলা গ্রামে। তার বাবার নাম মান্নান মোল্লা। তার শ্বশুর বাড়ি গাজীপুর জেলায়। স্বামীর নাম আব্দুল মান্নান।

নিহত রহিমার মরদেহ লেবাননের বাবদা সরকারি হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়ে

advertisement