advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

অমিত শাহর বক্তব্যে ‘গলদ’, প্রতিবাদ বিএনপির

নিজস্ব প্রতিবেদক
১১ ডিসেম্বর ২০১৯ ০৩:০৮ | আপডেট: ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ ০৩:২৪
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (বাঁয়ে) ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ফাইল ছবি
advertisement

বাংলাদেশে বিএনপির আমলে সংখ্যালঘু নির্যাতন হয়েছে বলে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ’র দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার ভারতের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভায় বহুল আলোচিত নাগরিকত্ব বিল পাস হয়, যাতে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে শরণার্থী হিসেবে যাওয়া অমুসলিমদের ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে।

কিন্তু পার্লামেন্টে মুসলিম সদস্যরা এই বিলের বিরোধিতা করলে যুক্তি খণ্ডন করে বক্তব্য দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ। সেখানে তিনি বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের জন্য বিএনপির প্রতি অভিযোগ তুলেছেন বলে জানান মির্জা ফখরুল।

মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগের আমলে এখানে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন হয়েছে।’ বিএনপি সরকারে থাকাকালে সংখ্যালঘুদের ‘স্বার্থরক্ষা’ হয়েছে বলেও দাবি করেছেন তিনি। 

পরে রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকেও এ বিষয়ে আলোচনা এবং অমিত শাহর বক্তব্যের নিন্দা জানানো হয়।

তিনি বলেন, “আপনারা শুনেছেন, গতকাল (সোমবার) পার্লামেন্টে অমিত শাহ যে বক্তৃতা করেছেন সেখানে বিএনপির নাম করে কথা বলেছেন কিছু, যে বিএনপি সরকারের আমলে এখানে সংখ্যালঘুদের ওপরে নির্যাতন হয়েছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

‘আমরা খুব জোর গলায় বলতে পারি, বিএনপি সরকারের আমলে এখানে সংখ্যালঘুদের স্বার্থরক্ষা করা হয়েছে। তাদের ওপর নির্যাতন আওয়ামী সরকারের আমলে যতটা হয়েছে, আর কখনো সেটা হয়নি।’

ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আপনারা জানেন যে, ভারতে নতুন যে নাগরিকত্ব আইন করা হয়েছে সেই আইনে খুব পরিষ্কার করে তারা বলছে, পার্লামেন্টে (লোকসভা) পর্যন্ত বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে একদম এভাবে বলা হচ্ছে যে, মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকেরা যাচ্ছে ভারতবর্ষে এবং তাদের অবৈধ অভিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

‘পার্লামেন্টে (লোকসভা) যে আইন পাস করা হয়েছে সেই আইনের মধ্যে অমুসলিম যারা তাদেরকে নাগরিকত্ব দেওয়া হবে ৫ বছর না কত বছর গ্যাপ দিয়ে। কিন্তু মুসলিম যারা আছেন তাদেরকে দেওয়া হবে না।’

রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তার (অমিত শাহ) মন্তব্যে আমরা শুধু উদ্বিগ্নই নই, আমরা অত্যন্ত বিক্ষুব্ধ, আমরা…। এজন্যই যে, আমরা কেউ কখনো আশা করতে পারিনি যে, তাদের দেশের এরকম দায়িত্বশীল নেতা এবং যারা এই অঞ্চলে বেশ প্রভাব নিয়ে আছেন, তাদের কাছ থেকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি নিয়ে যখন দায়িত্বহীন মন্তব্য আসে, সেটাকে আমাদের কোনো মতেই মেনে নেওয়া সম্ভব হয় না। সে কারণে আমরা অমিত শাহের বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, “আজকে এদেশের জনগণ যে ধারণা নেবে যে, অমিত শাহের এই উক্তি সুনির্দিষ্ট করে একটি রাজনৈতিক দলকে সমর্থন দিচ্ছে কি না সেটা নিয়ে প্রশ্ন এসে যায়। এই বিষয়গুলো…।

 

 

advertisement