advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রাজশাহীর দ্বিতীয় জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ০১:১৫
advertisement

প্রথম দুই দিনের তুলনায় গতকাল বঙ্গবন্ধু বিপিএলের তৃতীয় দিন মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে দর্শকের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। শুক্রবার সরকারি ছুটির দিন থাকায় অনেকেই ছুটে আসেন মাঠে। পূর্ব গ্যালারি, শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ড, নর্দান ও সাউদান, গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডে দর্শকে পরিপূর্ণ ছিল। কিন্তু দর্শকদের সেভাবে বিনোদন দিতে পারেননি সিলেট-রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা। দুদলের ম্যাচ শেষ হয়ে যায় নির্ধারিত সময়ে প্রায় এক ঘণ্টা আগেই। টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ৯১ রানেই গুটিয়েছে সিলেটের ইনিংস। জবাবে ১০.৫ ওভারেই ২ উইকেট হারিয়ে সহজ জয় তুলে নেয় রাজশাহী। নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচেই জয় পেয়েছে আন্দ্রে রাসেলের নেতৃত্বাধীন দলটি। অন্যদিকে নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচেই হারের তিক্ত স্বাদ পেল সিলেট।

রাজশাহীর ওপেনার লিটন দাসের ব্যাটে কিছুটা ব্যাটিং-বিনোদন উপভোগ করেছেন দর্শকরা। একশর কম রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন লিটন। ২৬ বলে অপরাজিত ৪৪ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলেন তিনি। তার ইনিংসে ৭টি চারের মার ছিল। লো-স্কোরিং ম্যাচে রাজশাহীর হয়ে জ্বলে ওঠেন আফিফ হোসেনও। ২৫ বল খেলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩০ রানের ইনিংস খেলেন এই তরুণ অলরাউন্ডার। এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা সিলেটের ব্যাটিং লাইনআপ ধসিয়ে দেওয়ার পেছনে কার্যকরী ভূমিকা রাখেন অলক কাপালি। তার লেগস্পিনের সামনে চার্লস, মেন্ডিস, নাজমুল ব্যর্থ হয়েছেন। এ ছাড়া ফরহাদ রেজা, রবি বোপারা ও আন্দ্র্রে রাসেলের বোলিংয়ের সামনে সুবিধা করতে পারেননি সিলেটের অন্য ব্যাটসম্যানরা। দলটির পক্ষে সর্বোচ্চ ২০ রান করে আসে অধিনায়ক মোসাদ্দেক ও মিঠুনের ব্যাট থেকে। ৩ ওভারে ১৭ রান দিয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেন কাপালি। ২টি করে উইকেট পান বোপারা ও ফরহাদ। ম্যাচসেরার পুরস্কার ওঠে কাপালির হাতেই।

আন্দ্রে রাসেলের নেতৃত্বে এবার খেলছে রাজশাহী। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে দারুণ ছন্দে রয়েছে দলটি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা রাসেলের অধিনায়কত্ব উপভোগ করছেন বলে ম্যাচশেষে জানালেন কাপালি। দলের প্রত্যেককে উজ্জীবিত রাখছেন ক্যারিবীয় এই অলরাউন্ডার। সামনের ম্যাচগুলোতে জয়ের ছন্দ ধরে রাখতে চায় দলটি। লো-স্কোরিং ম্যাচ হয়েছে। প্রত্যাশিত ব্যাটিং-বিনোদন পাননি দর্শকরা। বেশি রান না হওয়ায় উইকেটের দোষ দিতে চান না কাপালি। তিনি জানান, উইকেট ভালো ছিল। প্রথম দিকে সিলেট যেভাবে শুরু করেছিল তাতে ১৮০ রান হতে পারত! বোলাররা ভালো করেছেন। অন্যদিকে সিলেট থান্ডারের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে আসা নাঈম হাসান বললেন, তাদের দলের জন্য একটি জয় দরকার। তা হলেই দল ঘুরে দাঁড়াবে।

advertisement