advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘নাগরিকত্ব আইন ঠেকানোর ক্ষমতা নেই মমতার’

অনলাইন ডেস্ক
১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৫:২৬ | আপডেট: ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ১৯:১৮
পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির প্রধান দিলিপ ঘোষ। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

ভারতে সদ্য পাস হওয়া সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন প্রথম চালু হবে পশ্চিমবঙ্গে। এটি ঠেকানোর ক্ষমতা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা তার দল তৃণমূল কংগ্রেসের নেই বলে মন্তব্য করেছেন পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির প্রধান দিলিপ ঘোষ।

গতকাল শনিবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে এ বিজেপি নেতা বলেন, ‘এর আগে মমতা ৩৭০ ধারা ও নোট বাতিলেরও বিরোধিতা করেছিলেন। কিন্তু কেন্দ্র সরকারকে তা কার্যকর করা থেকে বিরত রাখতে পারেননি। এবার নতুন নাগরিকত্ব আইনেও সেটিই হবে। আর পশ্চিমবঙ্গই হবে নাগরিকত্ব আইন চালু হওয়া প্রথম রাজ্য। মমতা বা তার দল পারলে এটি ঠেকিয়ে দেখাক।'

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর আগে যেকোনো মূল্যে পশ্চিমবঙ্গে নতুন নাগরিকত্ব আইন চালু ঠেকানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন মমতা ব্যানার্জি। এর জেরে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় শুরু হয় বিক্ষোভ মিছিল।

মমতা ব্যানার্জি কেন নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতা করছেন তা পরিষ্কার করার আহ্বান জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি প্রধান বলেন, ‘তিনি কি রাজ্যে তার ভোটব্যাংক হারানোর ভয় পাচ্ছেন? তিনি অনুপ্রবেশকারীদের নিয়ে চিন্তিত। কিন্তু যে হিন্দু শরণার্থীরা কয়েক দশক ধরে এই আইনের দিকে তাকিয়ে আছে, তাদের কথা ভাবছেন না।’

এদিকে, বীরভূমের মুরারই স্টেশনের প্ল্যাটফরম ও লাইনে টায়ার জ্বালিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। শুক্রবার ও শনিবারও বিক্ষোভে উত্তাল ছিল পশ্চিমবঙ্গ। জেলায় জেলায় রেল-সড়ক অবরোধ করা হয়েছে। ভাঙচুর করে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা।

উল্লেখ্য, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন অনুসারে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে আশ্রয় নেওয়া অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দেওয়া হচ্ছে।

advertisement