advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তবু মুক্তি মেলেনি সেই আজিজের

মহেশপুর প্রতিনিধি
১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:০৮
advertisement

যশোরের চৌগাছায় এক আজিজের পরিবর্তে ভুলক্রমে অন্য আজিজকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে জানিয়ে আদালতে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে পুলিশ। তবে গতকাল রবিবার গ্রেপ্তারের সাত দিন পার হলেও মুক্তি মেলেনি ‘নিরপরাধ’ আজিজের। গতকাল এ বিষয়ে আদালতে প্রতিবেদন দেওয়া হয় বলে জানান চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব। তবে গ্রেপ্তার আজিজের ভাতিজা রাজা আহাম্মেদ সন্ধ্যায় নিশ্চিত করেন রবিবারও তার চাচার মুক্তি মেলেনি। এর আগে গত ৯ ডিসেম্বর নাম, বাবার নাম ও গ্রামের নাম এক হওয়ায় এক আজিজের পরিবর্তে পুলিশ ‘ভুল করে’ অন্য আজিজকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠায়। ২০০৯ সালের ২২ অক্টোবর রাতে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার নারিকেলবাড়িয়া গ্রামে লোহিত মোহন সাহার ছেলে নবকুমার সাহার বাড়িতে ডাকাতির হয়। পর দিন নবকুমার সাহা অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে বাঘারপাড়া থানায় মামলা করেন। ২০১১ সালের ৩০ মার্চ বাঘারপাড়া থানার তৎকালীন এসআই গাজী আবদুল কাইয়ুম লুটতরাজ ও বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনে ৯ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে ৯ আসামির মধ্যে ৭ নম্বর আসামি করা হয় চৌগাছা উপজেলার সিংহঝুলি (মাঠপাড়া) গ্রামের আহাদ আলী কারিগরের ছেলে আবদুল আজিজকে (জাতীয় আইডি কার্ডে আছে আজিজুর রহমান)। চার্জশিটে যার বয়স উল্লেখ করা হয় ৩০ বছর। পরে মামলাটি বদলি করে যশোরের জেলা ও দায়রা জর্জ আদালতে পাঠানো হয়। পুলিশ ২০১২ সালের ১ মার্চ আবদুল আজিজকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়। ৫ মার্চ আজিজ জামিনে মুক্তি পান। তিন বছর আগে আসামি আবদুুুল আজিজ কাতার চলে যান। দীর্ঘদিন আদালতে হাজির না হওয়ায় গত ৯ ডিসেম্বর রাতে পুলিশ প্রকৃত আসামির পরিবর্তে মৃত আহাদ আলী দফাদারের ছেলে আবদুল আজিজকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়।

এ বিষয়ে চৌগাছা থানার ওসি রিফাত খান রাজীব শনিবার বলেন, ‘দুজনেরই নাম, বাবার নাম ও গ্রাম একই হওয়ায় এমন ঘটনা ঘটেছে। আমরা আসামির আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হই। এ বিষয়ে রবিবার আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।’ গতকাল রবিবার তিনি বলেন ‘আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।’

advertisement