advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তিন সেঞ্চুরির পর ড্র

ক্রীড়া ডেস্ক
১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ০০:১০
advertisement

শেষ দিনে তিন সেঞ্চুরির পর ড্র’তে শেষ হলো দশ বছর পর দেশের মাটিতে ফেরা পাকিস্তানের ঐতিহাসিক টেস্ট। বৈরী আবহাওয়ার দাপটে পাকিস্তান-শ্রীলংকার দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের পাঁচ দিনে খেলা হয়েছে ১৬৭ ওভার। ম্যাচের পঞ্চম ও শেষ দিন সেঞ্চুরি করেন শ্রীলংকার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। কারণ বৈরী আবহাওয়ার কারণে ম্যাচের দ্বিতীয় থেকে চতুর্থ দিন খুব বেশি ব্যাট করার সুযোগ পাননি ডি সিলভা। তার ১০২ রানের কল্যাণে পঞ্চম দিনে ৯৭ ওভারে ৬ উইকেটে ৩০৮ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে শ্রীলংকা। এর পর ব্যাট হাতে নেমে অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা আবিদ আলি ও বাবর আজমের জোড়া সেঞ্চুরিতে ৭০ ওভারে ২ উইকেটে ২৫২ রান করে পাকিস্তান। আবিদ ১০৯ ও বাবর ১০২ রানে অপরাজিত থাকেন। এর পরই ম্যাচটি ড্রতে শেষ হয়। রাওয়ালপিন্ডিতে প্রথম দিন আলো স্বল্পতার কারণে ৬৮ দশমিক ১ ওভার খেলা হয়। দ্বিতীয় দিন আলো স্বল্পতা ও বৃষ্টির কারণে খেলা হয় ১১০ বল। তৃতীয় দিন আলো স্বল্পতা ও বৃষ্টির কারণে খেলা হয় মাত্র ৩২ বল। চতুর্থ দিন তো মাঠেই নামতে পারেনি দুদল। এ সময় ৯১ দশমিক ৫ ওভারে ৬ উইকেটে ২৮২ রান ছিল শ্রীলংকার। ধনঞ্জয়া ডি সিলভা ১৫১ বলে অপরাজিত ৮৭, অধিনায়ক দিমুথ করুনারতেœ ৫৯, ওসাদা ফার্নান্দো ৪০ রান করেন।

পঞ্চম ও শেষ দিন প্রথম সেশনে টেস্ট ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ডি সিলভা। তার সেঞ্চুরির পর ইনিংস ঘোষণা করে শ্রীলংকা। ১৫টি চারে ১৬৬ বলে অপরাজিত ১০২ রান করেন ডি সিলভা। পাকিস্তানের আফ্রিদি-নাসিম ২টি করে উইকেট নেন। শ্রীলংকা ইনিংস ঘোষণার পর ব্যাট হাতে নেমে তৃতীয় ওভারেই ধাক্কা খায় পাকিস্তান। তৃতীয় উইকেটে শ্রীলংকার বিপক্ষে দুর্দান্ত ব্যাট করেছেন আবিদ-বাবর। ফলে সেঞ্চুরির স্বাদ নেন দুজনই। প্রথম টেস্টেই সেঞ্চুরির দেখা পান আবিদ। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডেতেও সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। ফলে ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বরেকর্ডের মালিক হন আবিদ। আবিদের পর সেঞ্চুরির স্বাদ নিয়েছেন বাবর আজম। দুজনের সেঞ্চুরিতে ম্যাচটি ড্র হয়।

advertisement