advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ক্রিকেট জীবনের সবচেয়ে বড় অংশ : মাশরাফি

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৩ জানুয়ারি ২০২০ ২০:৫০ | আপডেট: ১৩ জানুয়ারি ২০২০ ২০:৫০
ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে এক হাত দিয়ে ব্যাটিং করে ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছিলেন বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল। সাহসী সিদ্ধান্তে এদিন তিনি মন জয় করে নিয়েছিলেন কোটি কোটি বাঙালির। এ বার বঙ্গবন্ধু বিপিএলে হাতে ১৪টি সেলাই নিয়ে খেলে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা।

প্রেক্ষাপট ভিন্ন, জাতীয় দল ও বিপিএলে অনেক তফাৎ। তবুও খেলা তো! খুলনার বিপক্ষে ফিল্ডিংয়ের সময় হাত যখন ফেটে যায় তখনই মাশরাফি সিদ্ধান্ত নেন তিনি খেলবেন! কথাটি জানিয়েছেনও তিনি।

তামিমের ভাঙা আঙ্গুলের খেলার পেছনেও মাশরাফির অবদান অনেক। সে ম্যাচটি জিতেছিল বাংলাদেশ। তবে সেলাই পড়া হাতে খেলে নিজের দল ঢাকাকে জেতাতে পারেননি মাশরাফি।

দল না জিতলেও সবুজ গালিচায় মাশরাফি ছিলেন অনন্য। খেলেছেন মন-প্রাণ উজাড় করে। চার ওভার বোলিং করেছেন, এক হাত দিয়ে দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরিয়েছেন গেইলকে।

ইনিংস শেষে ঢাকার অথিনায়ক মাশরাফির হাত দেখতে আসেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান ক্রিসে গেইল

ম্যাচ শেষে সন্ধ্যায় নির্ধারিত সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফির কাছে প্রথম প্রশ্ন ছিল এ বিষয়েই। জীবনের চেয়ে ক্রিকেট বড় কিনা প্রশ্নের জবাবে ক্যাপ্টেন ম্যাশ বললেন, ‘জীবনের থেকে ক্রিকেট অবশ্যই বেশি না। ক্রিকেট জীবনের সবচেয়ে বড় একটি অংশ।’

এক হাত দিয়ে ক্যাচ নিয়েছেন গেইলের। ক্যাচ যখন আসে মাশরাফির মনে কী ঘুরছিল, ধরবেন কি ধরবেন না? তিনি বলেন, ‘ক্যাচের কথা আসলে... চলে আসছে, অপশন ছিল না দুই হাত দেওয়ার। খুব দ্রুত আসলে কি হতো জানি না। কেননা খেলার সময় অনেক দ্রুত চলে যায় হাত। বলটা একটু আস্তে ছিল, এজন্য আমি সময় পেয়েছি এক হাত দিয়ে ধরার জন্য।’

বিপিএলের অন্যতম সফল অধিনায়ক মাশরাফি মোর্তজা। গত ছয় আসরের চারবারই তার হাতে উঠেছে চ্যাম্পিয়নের ট্রফি। এবার আর পারলেন না, চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে সাত উইকেটে হেরে বিদায় নিতে হয় এলিমেনটর থেকেই। তো আগামী আসরে দেখা যেবে মাশরাফিকে? মাশরাফির উত্তর, ‘পরের বিপিএলে দেখি নিলামে দল পাই কিনা। এরপর দেখা যাবে।’

advertisement