advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

অবশেষে পাকিস্তান সফর

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৫ জানুয়ারি ২০২০ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২০ ০০:০৪
advertisement

অবশেষে পাকিস্তান সফরের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। গতকাল দুবাইয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান এহসান মানি। দুই বোর্ডের মধ্যে সিরিজের ব্যাপারে বিদ্যমান সমস্যার সমাধান করে দেন আইসিসির প্রেসিডেন্ট শশাঙ্ক মনোহর। তিন দফায় পাকিস্তান সফরে যাবে বাংলাদেশ জাতীয় পুরুষ ক্রিকেট দল। পাকিস্তান সফরে দুটি টেস্ট ও তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সিরিজের সঙ্গে একটি ওয়ানডে ম্যাচও খেলবে টাইগাররা। প্রথম দফায় চলতি মাসেই তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে যাবে তারা। ২৪, ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি লাহোরে অনুষ্ঠিত হবে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এ সিরিজ খেলে দেশে ফেরার পর দ্বিতীয় দফায় সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলতে যাবে বাংলাদেশ। রাওয়ালপিন্ডি এ টেস্ট ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ৭ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি। দ্বিতীয় দফায় খেলে আসার পর তৃতীয় দফায় সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ও একমাত্র ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে যাবে বাংলাদেশ দল। করাচিতে ৩ এপ্রিল ওয়ানডে ম্যাচ খেলার পর ৫ থেকে ৯ এপ্রিল সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

দ্বিপক্ষীয় পূর্ণাঙ্গ ক্রিকেট সিরিজ তিন দফায় গিয়ে পাকিস্তানের মাটিতে খেলতে বিসিবি রাজি হওয়ার পর বিসিবির বিজ্ঞপ্তিতে নাজমুল হাসান পাপন জানান, আমাদের পরিস্থিতি বোঝার জন্য ধন্যবাদ পিসিবিকে। আমরা পারস্পরিক গ্রহণযোগ্য সমঝোতার মাধ্যমে সমাধানে পৌঁছেছি। আইসিসি এফটিপি অঙ্গীকারের প্রতি সম্মান জানানোর আমাদের আন্তরিক প্রচেষ্টার একটি প্রধান উদাহরণ এটি। পিসিবির চেয়ারম্যান এহসান মানি জানান, ক্রিকেটের স্বার্থে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা হওয়ায় খুশি তিনি। আইসিসির চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহরকে ধন্যবাদ দিয়েছেন তিনি। পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান জানান, এই সিরিজের অনিশ্চয়তা কাটিয়ে ওঠায় খুশি তারা। পাকিস্তান যে কোনো ক্রিকেট খেলুড়ে দেশের জন্য নিরাপদ।

দুবাইয়ে আইসিসির সভায় যোগ দিতে যাওয়ার আগের দিন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানিয়েছিলেন, টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে পাকিস্তান সফরে যেতে রাজি আছেন তারা। পাকিস্তানের মাটিতে টেস্ট সিরিজ না খেলার সিদ্ধান্ত অটল ছিল বিসিবি। পিসিবি নতুন প্রস্তাব দিয়েছিলÑ সিরিজের একটি টেস্ট ঢাকায় ও অপর ম্যাচটি পাকিস্তানে গিয়ে খেলার। তাতেও আগ্রহ দেখায়নি বিসিবি। অবশেষে তিন দফায় পাকিস্তান সফরে গিয়ে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ এবং একটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলো।

advertisement