advertisement
advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সুচরিতাকে লাঞ্ছনা, রফিককে হুমকি জায়েদের

বিনোদন প্রতিবেদক
১৫ জানুয়ারি ২০২০ ১৩:৫০ | আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২০ ১৯:০৭
নির্মাতা রফিক সিকদার (বাঁ থেকে), চিত্রনায়ক জায়েদ খান
advertisement

বাংলা চলচ্চিত্রের প্রবীণ অভিনেত্রী সুচরিতার সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগ উঠেছে তরুণ নির্মাতা রফিক সিকদারের বিরুদ্ধে। গতকাল চলচ্চিত্রের এই অভিনেত্রী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে লিখিত আকারে অভিযোগ করেছেন। এ নিয়ে বেশ সরগরম চলচ্চিত্রপাড়া, চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। এদিকে, এই ঘটনায় পরিচালক রফিক সিকদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানের বিরুদ্ধেও অভিযোগ এনেছেন।

জায়েদ খান পুলিশি ক্ষমতা দেখিয়ে হুমকি দিয়েছেন- অভিযোগ করে দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনকে রফিক সিকদার বলেন, ‘এই বিষয়টা নিয়ে জায়েদ খান আজকে (গতকাল) আমাকে ফোন দিয়ে পুলিশি ক্ষমতা দেখিয়েছে। জায়েদ খান আমাকে বলেছে, “সুচরিতা যদি তোকে ওখানে কুপিয়ে মেরেও ফেলে তাও তোর সহ্য করতে হবে।” আমার মা তুলে জায়েদ খানও একটা গালি দিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি তাকে (জায়েদ খান) বলেছি, আমার মা তুলে গালি দেওয়া নিয়েই এত ঘটনা আবার আপনিও আমার মা তুলে গালি দিলেন। একটা দায়িত্বশীল জায়গায় বসে থেকে আপনি আমাকে গালি দিতে পারেন না। চলচ্চিত্রের অভিধান যদি আপনি মানেন তাহলে, একজন পরিচালককে শিল্পী সমিতির সেক্রেটারি গালি দিতে পারে না, পুলিশি ভয় দেখাতে পারে না, পরিচালক ও প্রযোজক সমিতির ওপর আধিপত্য দেখাতে পারে না। এটা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে নাই, চলচ্চিত্রের অভিধানে নাই। আমি সবই বলব ঢাকায় এসে।’

এই নির্মাতা আরও বলেন, ‘জায়েদ খান আমাকে বলেছে, “পাবনাতে এমন কোনো নেতা নাই যে তোকে বাঁচাতে পারবে। চাইলে তোকে এখনই পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে নিয়ে আসতে পারি।” তার হাতের মুঠোয় নাকি পুলিশ। আমার এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বললে জানতে পারবেন কি অশ্রাব্য ভাষায় আমাকে গালিগালাজ করেছে।’

পরিচালক রফিক সিকদারের এসব অভিযোগের প্রসঙ্গে জায়েদ খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন এবং অফিসিয়ালভাবে বিষয়টি মীমাংসা করা হচ্ছে বলেও জানান।

জায়েদ খান বলেন, ‘অভিযোগগুলো শুনে আমি নিজেও অবাক হয়েছি। আমি কেন তাকে হুমকি দিতে যাব। এগুলো সব মিথ্যে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সুচরিতাকে রফিক সিকদার শুধু বকাঝকাই করেনি। গলা চেপেও ধরেছে। সেখানের অনেক লোক তা দেখেছে। আমি তাকে বলেছি, সুচরিতা যদি আপনাকে গালিও দিয়ে থাকে আপনার উচিৎ ছিল বিষয়টি সহ্য করা। কারণ তিনি একজন চলচ্চিত্রের গুণী মানুষ। সে সুচরিতা, তার সঙ্গে সম্মান নিয়ে কথা বলা উচিৎ। তার (সুচরিতা) যদি কোনো ভুল থাকে, সেটি রফিক সিকদার তার সংগঠনকে জানাতে পারতেন। একজন সিনিয়র শিল্পীর সঙ্গে এই আচরণ করা তার মোটেও ঠিক হয়নি।’

হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করে জায়েদ খান আরও বলেন, ‘সুচরিতা সমিতিতে এসে লিখিত আকারে অভিযোগ দেওয়ার সময় কান্না করছিল। একজন সিনিয়র শিল্পীর সঙ্গে এ ধরনের আচরণ আমরা কিন্তু সহ্য করতে পারি না। সুচরিতা তখন আমাদের বলছিলেন, হয় এর সুষ্ঠু বিচার তাকে দিতে হবে। আর তা না হলে, শিল্পীর খাতা থেকে নাম কাটিয়ে সে চিরতরে এফডিসি থেকে বিদায় নেবে। ওই সময় আমি রফিক সিকদারকে ফোন করে একটু রাগারাগি করেছি। আমার কমিটির লোকজনও তখন ওখানে উপস্থিত ছিল। কোনো হুমকি দেইনি।’

সবশেষে জায়েদ খান বলেন, ‘রফিক সিকদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সঙ্গে সঙ্গে আমরা পরিচালক সমিতিতে লিখিত আকারে একটি অভিযোগ দিয়েছি। আশা করি, তারা এর ব্যবস্থা নেবে। তারা যদি এর ব্যবস্থা না নেয়, তবে আমরা আইনি পদক্ষেপ নেব।’

উল্লেখ্য, রফিক সিকদার পরিচালিত ‘বসন্ত বিকেল’ ছবিতে অভিনয় করছেন সুচরিতা। বরেণ্য এই চিত্রনায়িকার অভিযোগ, গত সোমবার সকাল পাবনার শাহজাদপুরে ছবির শুটিং করার সময় দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে সুচরিতাকে মারতে যান রফিক। তখন শুটিং স্পটে থাকা ক্যামেরাম্যানরা এগিয়ে এসে তাকে আটকান।

অন্যদিকে রফিক সিকদার বলছেন, কোনো কারণ ছাড়াই সুচরিতা খুব খারাপ ভাষায় তার প্রয়াত মাকে গালাগালি করছিলেন। তিনি বোঝানোর চেষ্টা করার পরও, সুচরিতা তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করতে থাকেন। এক সময় তিনিও তর্কে জড়িয়ে যান। সুচরিতাকে মারতে যাওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেছেন।

advertisement