advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

১৬ সদস্যকে পদ দিলেন রওশন, সাদ কো-চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৫ জানুয়ারি ২০২০ ১৮:৪৬ | আপডেট: ১৬ জানুয়ারি ২০২০ ০০:৫৪
সাদ ও রওশন এরশাদ
advertisement

ছেলে রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদকে জাতীয় পার্টির (জাপা) কো-চেয়ারম্যান হিসেবে পদায়ন করেছেন তার মা রওশন এরশাদ। নিজ ক্ষমতাবলে সাদ ও এম এ সাত্তারকে দলের কো-চেয়ারম্যানসহ আরও ১৪জনকে বিভিন্ন পদে পদায়ন করেন তিনি।

গতকাল বুধবার জাতীয় পার্টির প্যাডে রওশন এরশাদ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়। চিঠিতে রওশন বলেন, ‘এই মনোনয়ন ও সাংগঠনিক নির্দেশনা অনতিবিলম্বে কার্যকর হবে। দলের সাংগঠনিক কার্যক্রমকে গতিশীল করার লক্ষ্যে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

দলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক স্বাক্ষরিত ওই চিঠি অনুযায়ী জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে পদায়ন করা হয় অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন খান, অধ্যাপক মো. ইকবাল হোসেন রাজু, নূরে হাসনা লিলি চৌধুরী, অধ্যাপিকা রওশন আরা মান্নান, ফখরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, কাজী মামুনুর রশীদ, মাহজাবিন মুর্শেদ, নুরুল ইসলাম ওমর, আরিফুর রহমান খানকে।

জাপার ভাইস চেয়ারম্যান পদে পদায়ন করা হয়েছে আমানত হোসেন আমানত ও সাবেক এমপি ইয়াহিয়াকে।

যুগ্ম মহাসচিব পদে পদায়ন পেয়েছেন মো. জসিম উদ্দিন ভুইয়া ও রেজাউল করিমকে।

এ ব্যাপারে গণমাধ্যমে রওশন এরশাদ বলেন, ‘চিফ প্যাট্রন হিসেবে আমি বাদ পড়া নেতাদের মূল্যায়ন করেছি। এম এ সাত্তার অনেক সিনিয়র, তিনি শুরু থেকে দলে আছেন তাই তাকে কো-চেয়ারম্যান করেছি।’

প্রফেসর দেলোয়ার হোসেন খানকে দলের দুঃসময়ের নেতা উল্লেখ করে রওশন বলেন, ‘সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে মুক্ত করার আন্দোলনে তিনি জেল খেটেছেন। তাকে প্রেসিডিয়াম সদস্য করা হয়েছে। এভাবে যারা বাদ পড়েছেন, নতুন কমিটিতে তাদের বিভিন্ন পদে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সবাই মিলে যাতে দলকে শক্তিশালী করতে পারি সেজন্য এই পদক্ষেপ নিয়েছি।’

তবে রওশনের চিঠির ব্যাপারে জানেন না জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। তিনি বলেন, ‘আমরা রওশন এরশাদের এমন কোনও চিঠি পাইনি। তাই এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে পারবো না।’

যদিও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাপার এক প্রেসিডিয়াম সদস্য জানান, চিফ প্যাট্রন রওশন এরশাদের স্বাক্ষরিত চিঠিটি দুপুরে এক নেতার মাধ্যমে দলের মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গার কাছে পাঠানো হয়েছে।

advertisement