advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কানায় কানায় পূর্ণ শেরেবাংলা, বাইরে দর্শকদের হাহাকার

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৭ জানুয়ারি ২০২০ ২০:১৯ | আপডেট: ১৭ জানুয়ারি ২০২০ ২০:১৯
ফাইনাল ম্যাচে কানায় কানায় পূর্ণ শেরেবাংলা। ছবি : নজরুল মাসুদ
advertisement

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে শুরু থেকে দর্শক খরা থাকলেও ছুটির দিন গুলোতে দর্শকদের আমেজ দেখা গিয়েছিল। গত ৮ ডিসেম্বর শুরু হয়ে আজ শুক্রবার ফাইনালের মধ্য দিয়ে পর্দা নামবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বিশেষ এই আসরের। ফাইনাল ম্যাচ কেন্দ্র করে টিকিট চাহিদা ছিল তুঙ্গে। দিনের আলো বাড়ার সঙ্গে থেকেই মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়াম জুড়ে ভিড় করতে থাকে দর্শকরা।

সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হওয়া ম্যাচে স্টেডিয়াম পুরোপুরি ভরে যায় শুরুতেই। ২৫ হাজার ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এই স্টেডিয়ামের প্রতিটি আসনই আজ পূর্ণ। মাঠে তিল ধারণের ঠাই নেই, অথচ বাইরে তখনও টিকিটের জন্য হাহাকার।

দুপুর থেকেই স্টেডিয়াম এলাকা লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। বিকেল গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে পরিণত হয় জনসমাগমে। ম্যাচ চলাকালীনও অনেক দর্শক স্টেডিয়ামের বাইরে ভিড় করছেন।

নিরাপত্তা কর্মীদের হিমশিম খেতে হয় দর্শকদের সামলাতে। অনেক দর্শকই ফাইনাল ম্যাচ দেখার আশায় টিকিট নিয়েছেন তিন থেকে চারগুন দামে। অনেকে তিনগুণ দামেও মেলাতে পারেননি একটি টিকিট। অন্যান্য ম্যাচগুলোর সময় টিকিট বুথ ফাঁকা থাকলেও আজ সেখানে ছিল রাজ্যের ভিড়।

টিকিট না পেয়ে অনেককে দেখা গেছে ‘টিকিট চাই, টিকিট চাই’ স্লোগানে মিছিল করতে। গলা ফাটিয়ে মিছিল করেও লাভ হয়নি, মেলেনি কোনো টিকিট। অধিনাকাংশ টিকিট কালোবাজারিতে চলে চলে যাওয়াতে দর্শকদের অনেক হতাশ হতে হয়েছে।

বাধ্য হয়ে কয়েকগুণ বেশি টাকা দিয়ে কালোবাজারির কাছ থেকে টিকিট কিনতে হয়েছে তাদের। দর্শকরা আরও জানান, ৩০০ টাকার টিকিট নিতে হয়েছে ১১০০ টাকার বেশি দাম দিয়ে। এ ছাড়া ৪০০ টাকার টিকিট কালোবাজারি বিক্রি করছে ১১০০-১২০০ টাকার ওপরে। আর ৭০০ টাকার টিকিট কিনতে হচ্ছে ১৫০০-২০০০ টাকা দিয়ে।

পিয়াস সরকার নামে এক দর্শক আমাদের সময়কে বলেন, ‘বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচের খেলা দেখতে টিকিট কিনতে নির্ধারিত বুথে যান তিনি। কিন্তু বুথে গিয়ে কোনো টিকিট পাননি তিনি। বাধ্য হয়ে তিনগুণের বেশি দাম দিয়ে কালোবাজারির কাছ থেকে চারটি টিকিট কিনেছেন তিনি।’

মামুন নামে একজন জানান, টিকিট কেনার জন্য অনেকক্ষণ ধরে তিনি ঘোরাঘুরি করছিলেন। কিন্তু বুথে এবং অনলাইনে কোথাও টিকিট না পেয়ে ৩০০ টাকার টিকিট কিনতে হয়েছে ১১০০ টাকায়।

এবার বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচের টিকিটের সর্বনিম্ন মূল্য রাখা হয়েছে ৩০০ টাকা ও সর্বোচ্চ মূল্য রাখা হয়েছে ৩ হাজার টাকা।

advertisement