advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভারতের নাগরিকত্ব নিয়ে যা বললেন তসলিমা নাসরিন

অনলাইন ডেস্ক
২০ জানুয়ারি ২০২০ ১৬:০১ | আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২০ ০১:৩৩
লেখিকা তসলিমা নাসরিন
advertisement

ভারতের নাগরিকত্ব পেতে পারেন আলোচিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। তার নাগরিকত্ব পাওয়ার আভাস পাওয়া গেছে দেশটির অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের কথায়।

সংবাদমাধ্যমে এমন সংবাদ প্রকাশের পর এর প্রতিক্রিয়ায় তসলিমা নাসরিন আজ সোমবার বিকেলে তার ভেরিফায়েড ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।

দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনের পাঠকের জন্য তসলিমা নাসরিনের স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধরা হলো...

‘বাজারে বলাবলি হইতাছে আমি নাকি ভারতের নাগরিকত্ব পাইয়াই যাইতাছি। অর্থমন্ত্রী বলছেন আমি পাইয়া গেছি নাগরিকত্ব। যদিও ভুল কইরা বলছেন। স্লিপ অব টাং।

বাট কথা হইলো কেমনে আমি পাবো নাগরিকত্ব। পাওয়ার রাস্তা তো দেখতাছি না।

দেখতাছি না, কারণ আমি তো অ্যাপ্লাইই করি নাই নাগরিকত্বের জন্য। তাইলে কেম্নে কী!

বছর বছর আমার রেসিডেন্স পারমিট বাড়াইলেই আমি খুশি। দুইদিনের দুনিয়ায় আমাদের দুইদিনের বসবাস। কী দরকার নাগরিক হওয়ার।

নাগরিক হইলে সুবিধা কী শুনি! আমি তো বাংলাদেশের নাগরিক, আমারে দেশ থেইক্যা বাইর কইরা দেয় নাই? আমি তো সুইডেনের নাগরিক, ওই দেশে থাকতেই তো আমি পছন্দ করি না। তাইলে?

রেসিডেন্স পারমিট থাকলেও তো ইচ্ছা না হইলে রিসাইড করতে দেয় না সরকার বাহাদুর। আমার তো ছেল রেসিডেন্স পারমিট। ভারতের যে কোনো স্থানে বাস করার অনুমতি ত ছেল। আমারে লাত্থাইয়া ভাগায় নাই কলিকাত্তা থেইকা? ভাগাইছে। “ইন্ডিয়া” থেইকাও ভাগাইছে। শুধু “ভারত” থেইকা ভাগাইতে পারে নাই। কারণ ওইখানে আমার মন পইড়া ছেল।

কী হইব নাগরকত্ব দিয়া? কিছুই না। আইজ আছি, কাইল নাই। আমার হইল যেইখানে রাইত, সেইখানে কাইত।

দুনিয়াডায় এক যাযাবর মুসাফির আমি। আমার মনটাই আমার ঘরবাড়ি। আর কী লাগে এক জীবনে?’

প্রসঙ্গত, ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের পক্ষে কথা বলতে গিয়ে দেশটির অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের মুখে শোনা যায় লেখিকা তসলিমা নাসরিনের নাম। নতুন এই আইন ধর্মীয় বিভাজনমূলক নয়, এটা বোঝাতে তসলিমা নাসরিনের উদাহরণ টানলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। তার বক্তব্য, আদনান সামি, তসলিমা নাসরিনদের উদাহরণ দেখলেই বোঝা যাবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজন সৃষ্টিকারী নয়।

advertisement