advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পর্তুগালে বাংলাদেশি দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪

নাঈম হাসান,পর্তুগাল
২০ জানুয়ারি ২০২০ ১৮:৪০ | আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২০ ১৬:০৫
advertisement

পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে বাংলাদেশি দুই পক্ষের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে চারজন গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ছুরিকাহত একজনের অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

যদিও এর আগে সংঘর্ষের ঘটনায় একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। তবে লিসবনের প্রবাসী বাংলাদেশিরা বলছেন এ ঘটনায় কেউ নিহত হননি।

গত শনিবার বাংলা মার্কেট খ্যাত লিজবনের বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকা- মার্টিম মনিজে স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৯টার দিকে দা-চাপাতি ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায় দুদল। আহতদের দ্রুততম সময়ে লিসবনের সাও জোসে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।

গুরুতর আহত ওই ব্যক্তির নাম সাহেদ (৩৮)। তিনি সিলেটের ফেন্সুগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগ কর্মী। সংঘর্ষে একই উপজেলার কয়েকজন গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন।

জানা গেছে, দীর্ঘদি ধরে বাংলাদেশি অলিউর রহমান চৌধুরী ও ফরহাদ মিয়ার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। যে কারণে এই হামলার সূত্রপাত হয়। দুই পক্ষের প্রায় ৪০ জন এ হামলায় জড়ায়। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসেও এ দুই পক্ষে মারামারির ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সংঘর্ষের পরপরই সেখানে পুলিশ পৌঁছে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সাংবাদিকগত মার্টিম মনিজে গোলাগুলির শব্দ শোনার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন লিসবনের সান্তা মারিয়া মাইওর জইন্তার প্রেসিডেন্ট ড. মিগুয়েল কোয়েলো।

এ হামলার ঘটনা কেন্দ্র করে পর্তুগিজ কিছু মিডিয়ায় ভুল তথ্য ছডিয়ে পড়ে। ধর্মীয় রেষারেষির কারণে হামলাটি ঘটে বলে তাদের বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে খবর প্রকাশ পায়। এক রিসার্চ জরিপে অভিবাসীদের মাঝে এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনা নিজ নিজ দেশের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য বড় হুমকি বলেও অভিমত প্রকাশ করা হয়।

হামলায় ঘটনায় বাংলাদেশি কিছু সংবাদ মাধ্যমে একজন নিহত হয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়। অনেকে এ হামলাকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই পক্ষের বলেও খবর প্রকাশ করে। তবে লিসবনের আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, হামলার ঘটনায় দুই পক্ষের কোনো সম্পর্ক বা ইন্ধন নেই।

 

advertisement