advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রাউজানে মুনিরীয়া নিষিদ্ধের দাবিতে বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ

রাউজান (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
২০ জানুয়ারি ২০২০ ২২:১৮ | আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২০ ০২:২৯
টায়ার জ্বালিয়ে যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

চট্টগ্রামের রাউজানে আবারও চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়ক অবরোধ করেছে সাধারণ জনগণসহ সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা। আজ সোমবার সকাল ১০টা থেকে উপজেলার বিভিন্নপ্রান্ত থেকে শত শত নারী-পুরুষ রাস্তায় নেমে আসেন।

এ সময় সড়কের ওপর ঝাঁড়– হাতে নিয়ে নারীরা অবস্থান নেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল পুলিশ।

সোমবার চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ এলাকায় মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটির পূর্বঘোষিত তরিক্বত কনফারেন্স ছিল। কনফারেন্স বন্ধ ও তাদের সব কার্যক্রম নিষিদ্ধ করার পাশাপাশি একাধিক মামলার আসামি পীর মুনির উল্লাহকে গ্রেপ্তারের দাবিতে আন্দোলনে নামেন সাধারণ জনগণসহ আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

তারা রাউজানের জলিলনগর, মুন্সিরঘাটা, বেরুলিয়া, গহিরার বিভিন্ন পয়েন্টে টায়ার জ্বালিয়ে যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। বিক্ষোভ সমাবেশের কারণে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। তবে অবরোধে বিয়ের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স, প্রশাসন ও সাংবাদিকদের গাড়ি চলাচলে বাধা দেওয়া হয়নি।

চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের গহিরা ও জলিলনগর এলাকার দুইপ্রান্তে শত শত যাত্রীবাহী গণপরিবহন, প্রাইভেট গাড়ি, মালবাহী গাড়ি আটকা পড়ে। নিরুপায় হয়ে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করেন যাত্রীরা। দুপুর সাড়ে ১২টার পর উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের অনুরোধে এবং তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলে আন্দোলন প্রত্যাহার করেন আন্দোলনকারীরা। 

তাদের দাবি, মুনিরীয়া তরিক্বতপন্থীরা বিভিন্ন সময় আলেম-ওলামা, মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক নেতাসহ বিভিন্ন মানুষের ওপর হামলা, ১৪ বছরের কিশোর নঈম উদ্দিনকে হত্যাসহ নানা অপকর্ম করেছে। সর্বশেষ গত বছর ১৬ এপ্রিল আওয়ামীলীগ নেতা মোজাম্মেল হক ও মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আনোয়ারের ওপর হামলা করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি নিষিদ্ধ ও পীর মুনির উল্লাহকে গ্রেপ্তারের দাবিতে গত বছর ১৭ এপ্রিল থেকে আন্দোলন চালিয়ে আসছেন রাউজানের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন।

গহিরা এলাকার সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ সামাবেশে নেতৃত্ব দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি কাজী মো. ইকবাল ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ। তারা দুইজন রাউজানের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর অনুসারী।  

সমাবেশে বক্তব্য দেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জানে আলম জনি, আহসান হাবীব চৌধুরী হাসান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফৌজিয়া খানম মিনা প্রমুখ।

জমির উদ্দিন পারভেজ দৈনিক আমাদের সময়কে বলেন, ‘১০টিরও অধিক মামলার আসামি পীর মুনির উল্লাহ কীভাবে চট্টগ্রামে তরিক্বত কনফারেন্সের নামে সন্ত্রাসীদের মিলন মেলা করতে পারে। তাদের সকল কার্যক্রম নিষিদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। প্রশাসনের অনুরোধে আমরা সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করেছি। '

রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেফায়েত উল্লাহ বলেন, 'মুনিরীয়া বিরোধী আন্দোলনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ মাঠে ছিল। উপজেলা প্রশাসন ও আমাদের অনুরোধে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করেছে।'

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, 'সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে আমি বিক্ষোভ সমাবেশস্থলে গিয়ে তাদের অনুরোধ করলে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করেন। আমি তাদের অনুরোধ করেছি আইনগত সবধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

advertisement
Evaly
advertisement